পানাজি: রবি ফাওলারের অধীনে আইএসএলে অভিষেকটা মোটেই সুখের হয়নি এসসি ইস্টবেঙ্গলের। শুধু হারই নয়, প্রথম দু’ম্যাচে কোনও গোল না করে বিপক্ষের পাঁচ-পাঁচটি গোল হজম করেছে লাল-হলুদ ব্রিগেড। শনিবার সামনে নর্থ-ইস্ট ইউনাইটেড। হাইল্যান্ডারদের বিরুদ্ধে কী টুর্নামেন্টে প্রথম পয়েন্ট ঢুকবে ঘরে, জয় পাবে ইস্টবেঙ্গল? এটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন কলকাতা জায়ান্টদের শিবিরে। ম্যাচের আগেরদিন সাংবাদিক সম্মেলনে দলের ফুটবলারদের থেকে ধারাবাহিকতা চাইলেন ব্রিটিশ কোচ। রবি ফাওলার জানালেন এদেশে সবাই ম্যাচের ফলাফলে বিশ্বাসী। কিন্তু গত দু’টো ম্যাচে আমার দল খুব খারাপ ফুটবল খেলেনি।

হারের পাশাপাশি মুম্বই এফসি ম্যাচে ইস্টবেঙ্গলের পাওনা অধিনায়ক ড্যানি ফক্সের চোট। নর্থ-ইস্টের বিরুদ্ধে মাঠে নামতে পারবেন না স্কটিশ ডিফেন্ডার। তাঁকে ছাড়া হাইল্যান্ডারদের বিরুদ্ধে কেমন হবে দলের রক্ষণ স্ট্র্যাটেজি। উত্তরে ফাওলার জানান, ‘আমরা সবাই জানি ড্যানি ফক্স একজন দুর্দান্ত মানের ফুটবলার। ও এখানে দারুণ রেকর্ড নিয়ে এসেছে। স্বাভাবিকভাবেই কাউকে ওর শূন্যস্থানটা পূরণ করতেই হবে। আমাদের স্কোয়াড যথেষ্ট ব্যালান্সড। এভাবে দলের অধিনায়ককে হারানোটা কাম্য নয়। তবে এটাকে মেনে নিয়েই আমাদের এগোতে হবে।’ নর্থ-ইস্ট ইউনাইটেডকে নিয়েও তাঁর মতামত জানান লিভারপুল লেজেন্ড।

ফাওলার বলেন, ‘একজন তরুণ কোচের অধীনে দলটার ডিফেন্স থেকে শুরু করে আক্রমণভাগ যথেষ্ট শক্তিশালী। আমাদের জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে।’ একইসঙ্গে টুর্নামেন্টে রেফারিং’য়ের মান কিছুটা ভালো হতে পারে বলে আশাপ্রকাশ করেছেন ফাওলার। গত দু’টো ম্যাচেই নর্থ-ইস্ট একটি করে পেনাল্টি আদায় করে নিয়েছে। এপ্রসঙ্গে ইস্টবেঙ্গল কোচের ব্যাখ্যা, ‘পেনাল্টি যাতে হজম না করতে হয় সেজন্য বক্সের মধ্যে ডিফেন্ডারদের আরেকটু চতুর হতে হবে।’

একইসঙ্গে ভারতীয় ফুটবলারদের সম্পর্কে মুম্বই ম্যাচের পর তাঁর মন্তব্যের ব্যাখ্যাও করেন ব্রিটিশ কোচ। ফাওলার বলেন তাঁর মন্তব্য নিয়ে অহেতুক জলঘোলা হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ইস্টবেঙ্গল কোচের কথায়, ‘কাউকে অসম্মান করা আমার উদ্দেশ্য ছিল না। এই দলে একঝাঁক ভালোমানের ভারতীয় প্লেয়ার রয়েছে, তবে ম্যাচটাকে আরও ভালো করে বুঝতে হবে তাদের। আমাদের একটা নির্দিষ্ট ফুটবল দর্শন রয়েছে এবং আমরা প্রত্যেক ফুটবলারদের সেই ফুটবল দর্শনটাই বোঝাতে চেষ্টা করছি। সোশ্যাল মিডিয়ায় আমার মন্তব্যের অপব্যাখ্যা করা হয়েছে।

ইস্টবেঙ্গল একটা বিরাট ক্লাব। তাই লাল-হলুদ জার্সিটা গায়ে চাপানো মানে তোমাকে বিরাট দায়িত্বশীল হতে হবে। দেশীয় ফুটবলার হোক কিংবা বিদেশি, সকলের ক্ষেত্রে একই কথা প্রযোজ্য। আমি আমার ফুটবলারদের নিয়ে খুশি এবং আশা রাখছি সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ওরা আরও উন্নতি করবে। আমাদের প্রত্যেককে একে অপরের পাশে থাকতে হবে।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।