মুম্বই: মহারাষ্ট্রের থান জেলায় এক অদ্ভূত ঘটনা। সেখানে ভালধুনি নদীর জল হঠাৎ করেই রক্তের মতো লাল হতে শুরু করেছে, যা দেখে অবাক স্থানীয় মানুষজন। ছবিগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে ব্যাপক ভাবে।

দীর ধারে বসবাসকারী উলহাসনগর এবং আম্বরনাথ এলাকার মানুষেরা বলছেন, ভালধুনি নদীতে বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ ফেলা হচ্ছে। যার জেরে শুধু জল লাল হচ্ছে তাই না, বরং মানুষের পক্ষেও বাস করা কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে।

স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, রাজ্য দূষণ বোর্ড এমপিসিবি (মহারাষ্ট্র দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড) এর কাছে বারবার অভিযোগ করা সত্ত্বেও কাজ হয়নি। উলহাসনগরের কাউন্সিলর নদীতে বর্জ্য ফেলে এমন ব্যক্তির খোঁজ দিতে পারলে এক লাখ টাকার পুরষ্কার ঘোষণা করেছেন।

আরও পড়ুন – ‘বাংলাকে গুজরাত বানাবই, ক্ষমতা থাকলে আটকে দেখাক’, ফের হুঁশিয়ারি দিলীপের

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালেও নদীর দুই তীরে বসবাস করা মানুষেরা অসুবিধায় পড়েছিলেন। সেই সময় লোকেরা নিশ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছিল। নষ্ট বর্জ্যগুলি বায়ু দূষিত করে তোলায় অনেক লোক সেই স্থান ছেড়ে অন্যত্রও পাড়ি দেন। এই ঘটনায় একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছিল, যদিও পরে মামলা থেমে যায়।

২০১৪ -এর ঘটনার পর থেকেই স্থানীয়া বাসিন্দারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছিল যাতে রাসায়নিক কারখানা এবং বর্জ্য ট্যাংকার থেকে নোংরা ফেলা বন্ধ করা হয়। বর্জ্যগুলিকে ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে না পাঠায়ে নদীতে ফেলে দেওয়া হত বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। মনে করা হচ্ছে এমন ঘটনার জেরেই ওই অঞ্চলের জল কখনও কখনও লাল হয়ে যায়।

এই দূষণের ফলে স্থানীয়দের চোখে জ্বালা, চুলকানি, শ্বাসকষ্ট, বমি বমি ভাব শুরু হতে থাকে। তাঁদের চিকিৎসারও প্রয়োজন হয়।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।