স্টাফ রিপোর্টার, ইংরেজবাজার: ক্রমশই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে ফুলহার৷ আর এই নদীর ভয়ঙ্কর এই রূপই চিন্তার ভাঁজ ফেলছে স্থানীয় বাসিন্দাদের কপালে৷ কারণ ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে ভাঙন৷ এখনই এই অবস্থা হলে আগামিদিনে ঠিক কী হতে পারে তা ভেবেই ঘুম উড়েছে গ্রামবাসীর৷

রতুয়া ১নং ব্লকের দেবীপুর অঞ্চলের বাঁধ থেকে মাত্র ৫০মিটার দূরে রয়েছে ফুলহার নদী। পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সেচ দফতরের কর্মীরা জরুরি ভিত্তিতে কাজ শুরু করে দিয়েছেন৷ কিন্তু সেই কাজে বাধ সাধছে নদীর ভয়াল স্রোত৷ সেই সঙ্গে রয়েছে ভাঙনও৷

পড়ুন: সংস্কারের অভাবে ধুঁকছে সেতু, প্রাণ হাতে পারাপার করছেন বাঁকুড়াবাসী

জানা গিয়েছে, গত ২৪ঘন্টায় নদীর জল বেড়েছে প্রায় ২০সেন্টিমিটার। এবং এই জল আরও বাড়বে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে৷ এখনও পর্যন্ত ফুলহার নদীর ফলে রতুয়ার মহানন্দাটোলা, বিলাইমারি,নিউবিলাইমারি খাসাবন্যা,বাণীকান্তটোলা,আসুদটোলা,কালুটোলাকুড়ি গ্রামের ত্রিশ হাজার পরিবার জলবন্দি৷ হরিশ্চন্দ্রপুর ২নং ব্লকের গোবরাঘাট, দৌলতনগর,পায়খানামোর, তিলজানা, উত্তরকোরিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া গ্রামের প্রায় ৩২হাজার পরিবার জলমগ্ন।

এই অবস্থায় দুটি ব্লকের কর্মীদের ছুটি বাতিল করেছে প্রশাসন৷ বিধ্বস্ত এলাকায় ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছনোর কাজ চলছে৷ জলবন্দি বাসিন্দাদের উদ্ধারের জন্য নৌকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের টিম ঘটনাস্থলে রয়েছে বলে জানা যাচ্ছে৷ তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে একপ্রকার ঘুম উড়েছে গ্রামবাসীদের৷