কলকাতা: করোনা ভাইরাস সংক্রমণের জন্য সিঙ্গাপুর থেকে আর কলকাতায় ফিরতে পারেননি অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। সিঙ্গাপুরের বাড়িতেই পরিবারের সঙ্গে দিন কাটছে তাঁর। কিন্তু এর মধ্যেই অঘটন ঘটে গেল। সাইকেল চালাতে গিয়ে চোট পেলেন ঋতুপর্ণা।

জানা যাচ্ছে কব্জিতে মোচড় লেগে ভালোমতোই চোট লেগেছে অভিনেত্রীর। কিন্তু হঠাৎ সাইকেল চালাতেই বা গেলেন কেন? জানা যাচ্ছে, করোনা আবহের মধ্যে নিজেকে সুস্থ রাখতে প্রতিনিয়ত শরীরচর্চা করছেন ঋতুপর্ণা। আর তার সঙ্গে নিয়মিত সাইক্লিং করছেন তিনি। লক ডাউন এ সাইকেল চালানোয় সড়গড়ও হয়ে গিয়েছেন ঋতুপর্ণা। কিন্তু তা সত্বেও কী করে এমন বিপত্তি ঘটালেন!

অভিনেত্রী জানিয়েছেন, সাইকেল চালাতে চালাতে ইউটার্ন নিতে গিয়েছিলেন তিনি। তখনই ঘটে বিপত্তি। সাইকেল সামলাতে না পেরে মোচড় লাগে ডান হাতের কব্জিতে। ডান হাতে তৃতীয় আঙুলে চোট পেয়েছেন ঋতুপর্ণা। আর চোট পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর হাত অবশ হয়ে যায়।

কিন্তু চোট ভালো মতো লাগলেও হাড়ে চিড় ধরেনি। এমনই জানিয়েছেন ঋতুপর্ণার চিকিৎসক। আকুপাংচার করিয়ে হাতের পেশি সুস্থ-সবল করে তোলার চেষ্টা করছেন তিনি। ঋতুপর্ণার চোট লেগেছে এই খবর তিনি নিজেই টুইট করে জানান। খবর প্রকাশ্যে আসতেই তার অনুরাগীরা চিন্তিত হয়ে পড়েন। অনেকেই অভিনেত্রীর খোঁজ নেন এবং দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন। তবে ঋতুপর্ণা জানিয়েছেন যেহেতু হাড় ভাঙেনি তাই ব্যথা অনেকটাই কমছে।

প্রসঙ্গত লকডাউন এর আগে ঋতুপর্ণার শেষ যে ছবিটি মুক্তি পেয়েছে সেটি হল শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ও নন্দিতা রায় এর ‘বেলাশুরু’। তবে এখন যেহেতু করো না সংক্রমণের জন্য সিঙ্গাপুরে তিনি আটকে আছেন তাই কোনো ছবির কাজ করছেন না। কিন্তু তা বলে বসে নেই ঋতুপর্ণা। নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করেছেন তিনি। এই চ্যানেলে ছবি নিয়ে আলোচনা, কিংবা গান, কবিতা, নাচ ইত্যাদি আপলোড করছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।