কলকাতা: ঋতাভরী চক্রবর্তী যে টলিপাড়ার অন্যতম ফ্যাশনিস্তা তা বলাই বাহুল্য। শুধু টলিউড নয়। বলিউডেও ইতিমধ্যে বেশ কিছু ভালো কাজ করেছেন ঋতাভরী। টেলিভিশনে ওগো বধূ সুন্দরী ধারাবাহিক থেকে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন তিনি। প্রথম ধারাবাহিকেই মুগ্ধ করেছিলেন ঋতাভরী। তারপর নানা ছবিতে কাজ করেছেন তিনি।

অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি যে ফ্যাশন বিষয়েও বেশ দক্ষতা তার সোশ্যাল মিডিয়া নিয়মিত লক্ষ্য রাখলেই বোঝা যায়। তবে শুধু নিজেকে সাজানো নয়। নিজের বাড়িটাকেও খুব সুন্দর করে সাজিয়েছেন ঋতাভরী। সেই সমস্ত ছবিও ঋতাভরী সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন।

ঋতাভরীর ঘরের বেশ কিছু ছবি রয়েছে ইনস্টাগ্রামে। ঘর গুলি দেখলে মনে হয় যেন কোন রূপকথার দেশ। ঠিক রূপকথার গল্পে যেমন রাজকুমারীর ঘরের বর্ণনা থাকে, অভিনেত্রীর ঘর দেখলেও সেরকমই মনে হবে।

নিজের বাড়ির প্রিয় জায়গায় একটি কোজি টেন্ট বানিয়েছেন ঋতাভরী। গোলাপী আলোয় মোড়া সেই টেন্টের ভিতরে বসে নিজের পছন্দের বই পড়েন অভিনেত্রী। সঙ্গে থাকে তাঁর সব সময় সঙ্গী টেডি বিয়ার। আপনিও বাড়ির যেকোনো কোনায় নিজের জন্য এমন একটি টেন্ট বানিয়ে নিতে পারেন। যারা নিরিবিলিতে বসে বই পড়তে ভালবাসেন তাদের জন্য এটি আদর্শ।

এছাড়াও ঋতাভরীর বাড়ি সাজানোর অন্যতম সরঞ্জাম হলো মিনিয়েচার। ঋতাভরীর নিজস্ব মিনিয়েচার এর ব্যাপক সম্ভার রয়েছে। সেই মিনিয়েচার এর মধ্যে রয়েছে টিনটিন সহ নানা গল্পের চরিত্র। ছবিতে দেখলে মনে হবে যেন ঘরের ভিতর আর একটা দুনিয়া তৈরি হয়েছে। ঋতাভরীর নিজের ঘর সাজানোর প্রতি সৃজনশীলতা সত্যি নজর কাড়ার মতো।

আরও একটি বিষয় ঋতাভরীর বাড়িতে লক্ষণীয়। সেটি হলো প্রচুর গাছ দিয়ে সাজিয়েছেন ঋতাভরী। বর্তমান পরিস্থিতিতে গাছ রোপন করার সত্যি খুব প্রয়োজনীয়। আর তা খুব শৈল্পিক কায়দায় সাজিয়েছেন অভিনেত্রী। গাছগুলির টব নিজে হাতেই ডিজাইন করেছেন তিনি। এক কথায় বলা চলে যেন রঙিন একটা দুনিয়া রয়েছে ঋতাভরীর বাড়িতে। লিভিং রুমের জন্য প্যাস্টেল স্কাই রং বেছে নিয়েছেন তিনি।

ঋতাভরীর বেডরুমের দেওয়ালটি নজরকাড়া। ঘরের রং ঋতাভরীর ব্যক্তিত্বের সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে মানানসই। দেওয়াল জুড়ে রয়েছে প্রচুর পোস্টার, ছবি। সেগুলি টুনি লাইট দিয়ে সাজিয়েছেন অভিনেত্রী। ঘরের মেয়েদের জন্য বেছে নিয়েছেন মানানসই কার্পেট।

এছাড়াও ঘরে নিজের মতো সময় কাটানোর জন্য আরও একটি কর্ণার রয়েছে। কখনো কফি খেতে খেতে ম্যাগাজিন পড়া হোক, বা গান শোনা, এইখানে সময় কাটান ঋতাভরী। ঋতাভরীর প্রত্যেকটি ঘরে আলোর ব্যবহার খুবই চোখে পড়ার মতো।

ঋতাভরীর আরও একটি ঘরের দরজার রং নজরকাড়া। বেগুনি রঙের এই দরজা দেখলে সেই রূপকথার দেশের কথাই মনে পড়ে। সেই ঘরের পাশের দেওয়ালটি পুতুল দিয়ে সাজানো। ঠিক যেন কোনো রূপকথার রাজকুমারীর ঘর।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা