মুম্বই: মুম্বইয়ের স্যর এইচ এন রিলায়েন্স ফাউন্ডেশন হসপিটালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন অভিনেতা ঋষি কাপুর। কাপুর পরিবারে হঠাৎ নেমে এসেছে শোকের ছায়া। প্রয়াত অভিনেতার মেয়ে ঋদ্ধিমা কাপুর দিল্লিতে থাকেন। বাবার শেষকৃত্যে গাড়িতে করে দিল্লি থেকে মুম্বই আসবেন তিনি। এমনই জানা যাচ্ছে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে।

হাসপাতালে অসুস্থ হয়ে ভর্তির খবর পাওয়ার পরেই বুধবার বেশ রাতের দিকেই মুম্বই যাওয়ার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে একটি চার্টার্ড ফ্লাইট ব্যবস্থার অনুরোধ করেন ঋদ্ধিমা। কিন্তু এই অনুমতি দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে শুধু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের হাতে। এর পরে তিনি গাড়ি করে মুম্বই যাওয়ার অনুমতি চান।

দিল্লি পুলিশের এক আধিকারিক বলছেন, প্রায় গভীর রাতের দিকেই উনি গাড়িতে মুম্বই যাওয়ার অনুমতি চান। কয়েক মিনিটের মধ্যেই তাঁকে অনুমতি দেওয়া হয়। এসব ক্ষেত্রে দিল্লি পুলিশ সব সময়েই অনুমতি দিয়ে এসেছে।

তাই গাড়িতেই দিল্লি থেকে মুম্বই আসছেন পেশায় জুয়েলারি ডিজাইনার ঋদ্ধিমা। দিল্লি থেকে মুম্বই, এই ১৪০০ কিলোমিটার রাস্তা পেরিয়ে আসতে তাঁর ১৮ ঘণ্টা সময় লাগবে। লকডাউনের জন্য ট্রেন, বিমান সমস্তই বন্ধ। তাই গাড়িতে করে আসাই তাঁর একমাত্র উপায়।

প্রসঙ্গত, ৬৭ বছরে প্রয়াত ঋষি কাপুর। অসুস্থ হয়ে বুধবারই এইচ এন এন রিলায়েন্স হাসপাতালে ভরতি করা হয় অভিনেতাকে। ঋষির দাদা রণধীর কপূর সংবাদসংস্থা পিটিআইকে বলেছেন, “ওর শরীর ভালো যাচ্ছিল না। কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছিল। ক্যানসার তো রয়েছেই। শ্বাসকষ্টও শুরু হয়। সে জন্যই বুধবার সকালে ওকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়।”

২০১৮ সালে ক্যানসারের চিকিৎসায় বেশ কিছুদিন ধরে আমেরিকাতে ছিলেন তিনি ৷ গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে দেশে ফেরেন ৷ দিন কয়েক আগে দিল্লিতে দূষণের জন্য ফুসফুসে সংক্রমণ হওয়ায়, মুম্বইয়ের এই হাসপাতালে এনেই ভর্তি করা হয়েছিল ঋষি কাপুরকে ৷ সেসময় দিল্লিতে শ্যুটিং করছিলেন ঋষি। তারপরে গতকাল তাঁকে ফের হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। বলিউডের আকাশ থেকে খসে পড়ল আরও একটি তারা।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব