মুম্বই: তিন ওপেনারকে একসঙ্গে প্লেইং ইলেভেনে জায়গা করে দিতে সম্ভাব্য বেশ কয়েকটা বিকল্প হাতে রেকেছিল টিম ম্যানেজমেন্ট৷ তার একটা যদি হয় ব্যাটিং অর্ডারে বিরাটের নীচের দিকে নামা, তবে অন্য রাস্থা হিসেবে লোকশকে উইকেটকিপার হিসেবে ব্যবহারের কথাও মাথায় ছিল কোহলিদের৷ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে শেষমেশ উইকেটকিপারের গ্লাভসজোড়া হাতে তোলেন কেএল৷ তবে সেটা প্রাথমিক পরিকল্পনা মাফিক নয়৷ বরং এক প্রকার বাধ্য হয়ে৷

আরও পড়ুন: টেস্ট ক্রিকেটে ‘চার দিন কি চাঁদনি’ চান না বীরু

লোকেশ রাহুলকে উইকেটকিপারের ভূমিকা পালন করতে হয় ঋষভ পন্ত ফিল্ডিং করতে না নামায়৷ ব্যাটিংয়ের সময় যে বলটিতে আউট হন ঋষভ, সেটি ব্যাটের কানা ছোঁয়ার পর আঘাত করে তাঁর হেলমেটে৷ সাজঘরে ফেরার পর ফিজিওর নজরদারিতে রাখা হয় পন্তকে৷ তাঁর কনকাশন পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নামেন মণীশ পান্ডে৷ পন্ত না থাকায় উইকেটকিপিং করেন রাহুল৷ ঠিক যেভাবে রাহুল দ্রাবিড় পার্টটাইমার থেকে জাতীয় দলের বিশেষজ্ঞ উইকেকিপার হয়ে উঠেছিলেন, সেভাবেই লোকেশ রাহুল দ্বিতীয় ‘দ্রাবিড়’ হয়ে উঠতে পারেন কিনা, সেটাই এখন দেখার৷

আরও পড়ুন: ২-১ সিরিজ জিতবে অস্ট্রেলিয়া, ভবিষ্যদ্বাণী পন্টিং’য়ের

তার আগে বিরাট কোহলির ছেড়ে দেওয়া ব্যাটিং অর্ডারের তিন নম্বরে খেলতে নেমে লোকেশ নিশ্চিত অর্ধশতরান হাতছাড়া করেন৷ তিনি আউট হন ব্যক্তিগত ৪৭ রানে৷ ৬১ বলের ইনিংসে রাহুল ৪টি বাউন্ডারি মারেন৷ শিখর ধাওয়ানের সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটের জুটিতে ১২১ রান যোগ করেন তিনি৷

আরও পড়ুন: ২ বছর পর কোর্টে ফিরেই দুরন্ত জয় সানিয়ার

ওয়াংখেড়েতে ভারত টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৪৯.১ ওভারে ২৫৫ রানে অল-আউট হয়ে যায়৷ ধাওয়ান দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৪ রান করে আউট হন৷ বিরাট কোহলি চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ১৬ রানের বেশি সংগ্রহ করতে পারেননি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।