সিডনি: মেলবোর্নে বক্সিং ডে টেস্টে যেখানে শেষ করেছিলেন, সিডনিতে সেখান থেকে শুরু করতে পারল না ভারত৷ তারপর প্রধান কারণ জঘন্য উইকেটকিপিং৷ বিশ্বসেরা উইকেটকিপার ঋদ্ধিমান সাহা বসিয়ে রেখে ঋষভ পন্তের মতো ব্যাটসম্যান-উইকেটকিপারকে খেলানোর খেসারত দিতে হল টিম ইন্ডিয়াকে৷

বৃষ্টিবিঘ্নিত এসসিজি-তে তৃতীয় টেস্টের প্রথম দিনের শেষ মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ১৬২ রান তুলেছে অস্ট্রেলিয়া৷ ক্রিজে রয়েছেন মার্নাস ল্যাবুশানে ৬৭ এবং স্টিভ স্মিথ ৩১ রানে৷ কিন্তু উইকেটের পিছনে পন্ত ঝুড়ি ঝুড়ি ক্যাচ মিস না-করলে আজই অস্ট্রেলিয়ার চার বা পাঁচ উইকেট তুলে নিতে পারতেন ভারতীয় বোলাররা৷

নিউ ইয়ার টেস্টে টস হেরে প্রথমে ফিল্ডিং করে ভারত৷ কিন্তু ইনিংসের চতুর্থ ওভারে চোট সারিয়ে দলে ফেরা অজি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারকে ফিরিয়ে ভারতকে দারুণ দেন মহম্মদ সিরাজ৷ আউট সুইং ডেলিভারি তাড়া করতে গিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে চেতেশ্বর পূজারার হাতে ক্যাচ তুলে দেন ওয়ার্নার৷ ভয়ংকর হয়ে ওঠার আগেই বাঁ-হাতি অজি ওপেনারকে প্যাভিলিয়নের রাস্তা দেখিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে প্রথম ধাক্কা দেন গত ম্যাচে অভিষেক হওয়া ভারতের এই ডানহাতি পেসার৷

ওয়ার্নার আউট হওয়ার পর অভিষেককারী উইল পুকোভস্কিকে সঙ্গে নিয়ে অজি ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন ল্যাবুশানে৷ কিন্তু ম্যাচের অষ্টম ওভারে বৃষ্টিতে খেলা দীর্ঘক্ষণ বন্ধ থাকে৷ বৃষ্টি ব্রেকে লাঞ্চ ঘোষণা করে দেন আম্পায়াররা৷ পরে বৃষ্টি থামায় খেলা শুরু হলে দ্বিতীয় উইকেটে ১০০ রানের পার্টনারশিপ গড়ে পুকোভস্কি ও ল্যাবুশানে অজি ইনিংসকে মজবুত ভিতের উপর দাঁড় করিয়ে দেন৷ তবে এর কৃতিত্ব দিতে হবে ভারতীয় উইকেটকিপারকে৷ পুকোভস্কির দু-দু’টি সহজ ক্যাচ ছাড়েন পন্ত৷

দু-বার জীবন পেয়ে অভিষেক টেস্টে দারুণ হাফ-সেঞ্চুরি করেন পুকোভস্কি৷ শেষ পর্যন্ত আর এক অভিষেককারী নভদীপ সাইনির বলে এলবিডব্লিউ হয়ে প্যাভিলিয়নের রাস্তা ধরেন তিনি৷ ১১০ বলে চারটি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৬২ রানের ইনিংস খেলেন পুকোভস্কি৷ দারুণ ব্যাটিং করেন ল্যাবুশানেও৷ সিরিজে প্রথম হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ পান প্রতিশ্রুতিময় এই অজি ব্যাটসম্যান৷

দিনের শেষে ল্যাবুশানে ৬৭ রানে ক্রিজে রয়েছেন৷ তাঁকে সঙ্গ দেন সিরিজে প্রথমবার দু’ অংকের রানে পৌঁছনো স্টিভ স্মিথ৷ ৩১ রানে ক্রিজে রয়েছেন৷ অবিভক্ত তৃতীয় উইকেটে ৬০ রান যোগ করেছেন ল্যাবুশানে-স্মিথ৷ প্রথম দু’টি টেস্টে রান না-পাওয়া স্মিথ এদিন শুরুতে নড়বড়ে থাকলেও পরে ছন্দে ফেরেন৷ তবে ভারতীয় বোলারদের মাথায় চড়তে দেননি ল্যাবুশানে৷ শুক্রবার শুরুতেই এই জুটিতে ভাঙতে না-পারলে অজিঙ্ক রাহানেদের সামনে বড় রানের টার্গেট অবধারিত৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.