শিলচর: একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে অসমে গিয়ে কট্টর হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের বিক্ষোভের মুখে পড়লেন কবি শ্রীজাত৷ অসমের শিলচরে হোটেলের বাইরে বিক্ষোভ দেখান হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের সদস্যরা৷ এখানেই অনুষ্ঠানটি হওয়ার কথা ছিল শ্রীজাতর৷ লাগাতার বিক্ষোভের জেরে শেষমেশ অনুষ্ঠানটি বাতিল করতে বাধ্য হন উদ্যোক্তরা৷

এদিকে বিক্ষোভের জেরে দীর্ঘক্ষণ হোটেলে আটকে পড়েন কবি৷ পরে পুলিশ এসে দু’ঘণ্টা পর কবি শ্রীজাতকে হোটেল থেকে বার করে সার্কিট হাউসে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সূত্রের খবর, অনুষ্ঠান চলাকালীন কিছু লোক মঞ্চে উঠে বিক্ষোভ দেখানোর চেষ্টা করেন৷ পরে উদ্যোক্তরা এসে কবিকে উদ্ধার করেন৷ এদিকে বাইরে তখন অসংখ্য লোকের জমায়েত হতে শুরু করে৷ তখনই খবর দেওয়া হল পুলিশকে৷

বিক্ষোভকারীদের মূল অভিযোগ, কবিতায় কিছু শব্দপ্রয়োগের মাধ্যমে হিন্দুভাবাবেগে আঘাত করেছেন কবি৷ তাঁর প্রতিবাদে এই বিক্ষোভ৷ এদিকে বিক্ষোভকারীদের অনেক বুঝিয়েও ক্ষান্ত করতে ব্যর্থ হন উদ্যোক্তরা ও পুলিশ৷ তখনও হোটেলে ‘বন্দি’ কবি৷ দু’ঘণ্টা পর অবশেষে শ্রীজাতকে সেখান থেকে বার করে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয়৷

ঘটনার নিন্দায় মুখর হয়েছে বাংলার কবি ও সাহিত্য জগত৷ কবি শ্রীজাতর পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন নাট্যকাররা থেকে শুরু করে সাহিত্যিকরাও৷ কবি জয় গোস্বামী কলকাতা ২৪x৭ কে ফোনে বলেন, ‘‘ঘটনার নিন্দা করছি৷ শ্রীজাত অত্যন্ত শক্তিমান কবি৷ সমাজ সম্পর্কে তাঁর দৃষ্টিভঙ্গি পরিস্কার ও স্পষ্ট ভাষায় লেখেন৷ সেই সাহসকে আমরা কুর্নিশ জানাই৷ তাঁর মতো কবিকে হেনস্থার মুখে পড়তে হয় এটা খুব দুর্ভাগ্যের ব্যাপার৷’’ কবি শ্রীজাতর প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে বারবার তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়৷ তিনি ফোন ধরেননি৷

তবে একটি বাংলা সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে কবি শ্রীজাত এই ঘটনাকে অসহিষ্ণুতার বহিঃপ্রকাশ বলেই জানান৷ আগামীকাল তাঁর কলকাতায় ফিরে আসার কথা৷