ঢাকা: অবশেষে পুরো ভেঙে পড়লেন মিন্নি। একা লড়াই করে চার পাঁচজন দুষ্কৃতির হাত থেকে স্বামী রিফাতকে বাঁচিয়ে আনার চেষ্টা যে নাটক ছিল তা স্বীকার করে নিয়েছেন। ফলে চাঞ্চল্যকর রিফাত হত্যা মামলায় নতুন মোড় নিয়েছে। আপাতত গ্রেফতার মিন্নি।

পুলিশের জেরায় তিনি ভেঙে পড়েছেন। স্বীকার করেছেন পুরনো প্রেমিক নয়ন বন্ডকে নিয়ে স্বামী রিফাতকে কুপিয়ে খুনের পরিকল্পনার কথা। প্রকাশ্যে এই নব্য বিবাহিত যুবককে কুপিয়ে খুন করেছিল দুষ্কৃতিরা। ঘটনাস্থল বরগুনা।

যেভাবে রিফাতকে ঘিরে ধরে রাস্তার উপরেই রাম দা কুপিয়ে খুন করা হয় সেই ছবি ছড়িয়ে পড়তেই বাংলাদেশ তো বটেই বিশ্বজুড়ে সামাজিক মাধ্যমে চাঞ্চল্য ছড়ায়। তখনই দেখা গিয়েছিল রিফাতের খুনিদের বাধা দিতে একাই লড়ছিলেন মিন্নি।

পরে গোটা ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ। খুনি নয়নকে গুলি করে মারা হয়। তারই মাঝে উঠে আসে নয়নের সঙ্গে মিন্নির প্রেমের সম্পর্ক। এরপর নিহত রিফাতের পরিবারের পক্ষে মিন্নির বিরুদ্ধে খুনে জড়িত থাকার অভিযোগ আনা হয়। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। আদালতের নির্দেশে ৫ দিনের পুলিশি হেফাজত হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মিন্নি এই খুনে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে নিয়েছে। বৃহস্পতিবারই গ্রেফতার হয়েছে এই খুনের অন্যতম আসামী রিশান ফরাজী।

বরগুনার পুলিশ সুপার মারুফ জানান, গ্রেফতার হওয়া সব আসামি এবং মিন্নির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে স্পষ্ট খুনের বিষয়ে মিন্নি জানতেন। তিনিও এর অংশীদার। মিন্নি নিজেও এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন বলে তাকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। আগে ও পরে খুনিদের সঙ্গে মিন্নির কথোপকথনও হয়েছে।

মিন্নি ও নয়নের মধ্যে বিয়ে হয়েছিল। তারপর মিন্নি সবকথা লুকিয়ে রিফাতকে বিয়ে করেন। সেই ঘটনার পর থেকে রিফাত হয়ে যায় নয়নের টার্গেট। নয়নকে সঙ্গে নিয়ে মিন্নি তার নতুন স্বামী রিফাতকে খুনের পরিকল্পনা করে।

বরগুনার রাস্তায় যখন এই খুনের ঘটনা ঘটে তখন মিন্নি নিছকই নাটক করে খুনিদের বাধা দিয়েছিলেন।