দেহরাদুন: লোকেদের ঠাকানোর জন্য প্রায়ই নিত্য নতুন ফন্দি বের করে প্রতারকেরা। বিভিন্ন ধরণের প্রতারণামূলক ঘটনা প্রায়শই সামনে আসে। তবে এবার উত্তরাখণ্ডের রাজধানী দেহরাদুনে এক অদ্ভুত প্রতারণার ঘটনা। সেখানে এক অবসরপ্রাপ্ত সেনাকে উল্কাপিণ্ড থেকে কোটি টাকা পাওয়ার লোভ দেখিয়ে প্রতারণা করে নেওয়া হল দেড় কোটি টাকা।

প্রতারিত ওই অবসরপ্রাপ্ত সেনা জানিয়েছেন, ২০১৭ সালে একটি সংস্থার এক ব্যক্তির সঙ্গে তাঁর প্রথম দেখা হয়। ওই ব্যক্তি তাঁকে বলেছিলেন, জম্মু ও হিমাচলে তার যে ক্লায়েন্ট কাজ করে তার কাছে একটি উল্কাপিণ্ড আছে।

তাঁকে বলা হয়েছিল ওই উল্কাপিণ্ডের বাজার মূল্য ৫ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু ওই ক্লায়েন্ট সেটি মাত্র ১০ কোটি টাকায় বিক্রি করবেন। পাশাপাশি বলা হয় ওই উল্কাপিণ্ডের বৈজ্ঞানিক পরীক্ষায় প্রায় ১০ লক্ষ টাকা লাগবে।

কয়েকদিন খোজ খবর ও জিজ্ঞাসাবাদের পর ওই জওয়ান বিভিন্নভাবে প্রায় দেড় কোটি টাকা ওই সংস্থাকে দেন। কিন্তু পরে তিনি বুঝতে পারেন এটা গোটাটাই ধাপ্পাবাজি। অগ্যতা উপায় না পেয়ে শেষে তিনি এই জালিয়াতির কেস নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন।

দেহরাদুনের ডিআইজি অরুণ মোহন জোশি জানিয়েছেন, ওই অবসরপ্রাপ্ত জওয়ান পুরো ঘটনার বিষয়ে পুলিশকে জানিয়েছেন, সর্বস্বান্ত হওয়ার পরেও ওই জওয়ান কোনও উল্কাপিণ্ড পাননি বা টাকাও ফেরত পাননি।

পুলিশ আপাতত সলিম নামে এক ব্যক্তি সহ মোট ৬ জনের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করেছে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।