কালনা: করোনা মোকাবিলায় একেবারে প্রথম সারিতে দাঁড়িয়ে লড়াই করে চলেছেন চিকিৎসক-সহ অন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা। দিনরাত এক করে করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেবা করে চলেছেন তাঁরা। কালনার এক চিকিৎসকও তাঁদেরই একজন।

গত দু’মাস ধরে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালেই ছিলেন। করোনা আক্রান্তদের নিরলস সেবা করেছেন। লকডাউন একটু শিথিল হতেই গ্রামের বাড়িতে এসেছিলেন বাবা-মাকে দেখতে। চিকিৎসক গ্রামে ঢুকতেই তাঁর উপর ফুলবৃষ্টি প্রতিবেশীদের। অভূতপূর্ব এই সম্মানে অবাক চিকিৎসক নিজেও। চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি তাঁর বাবা-মা।

দিনরাত এক করে কয়েক মাস ধরে মানুষের সেবা করেছেন তিনি। করোনা আক্রান্তের চিকিৎসা করছিলেন, সেই কারণেই তাঁর থেকেও সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা ছিল। সেই কথা ভেবেই ২ মাস বাড়িতে ফেরেননি তিনি। পরিবার-প্রতিবেশীদের কথা ভেবে হাসপাতালেই ছিলেন। তবে কালনার বাড়িতে রয়েছেন চিকিৎসকের বৃদ্ধ বাবা-মা। লকডাউন চলাকালীন বাবা-মার সঙ্গে দেখা করতেও আসতে পারেননি। তবে ফোনে খোঁজ নিয়েছেন নিয়মিত।

লকডাউন একটু শিথিল হতেই তাই ছুটে এলেন গ্রামের বাড়িতে। কয়েক মাস পর ছেলেকে দেখে স্বভাবতই খুশি বাবা-মা। একইসঙ্গে ওই চিকিৎসককে কুর্নিশ জানাতে এলেন এলাকাবাসীও। তাঁদের সবার কথা ভেবেই করোনা আক্রান্তের চিকিৎসা করছেন বলে ওই চিকিৎসক গত দুমাস বাড়ি ফেরেননি।

এবার বাড়ি ফিরতেই চিকিৎসককে অভূতপূর্ব অভ্যর্থনা জানালেন প্রতিবেশীরা। বাড়ির সামনেই প্রতিবেশীরা দাঁড়িয়ে ছিলেন ফুল নিয়ে। চিকিৎসক আসতেই তাঁর হাতে তুলে দেওয়া হল ফুল।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV