হাওড়া: জোরপূর্বক উচ্ছেদের প্রতিবাদে আন্দোলনে নামল,হাওড়ার টিকিয়াপাড়ায় বিএনআর রেল কোয়ার্টারের প্রায় শতাধিক পরিবার। বিকল্প থাকার জায়গার ব্যবস্থা না করে রেল কর্তৃপক্ষ বলপূর্বক তাঁদের উৎখাত করার চেষ্টা চালাছে। এমন অভিযোগে মঙ্গলবার রেলের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়লেন ঐ রেল কোয়ার্টারের বাসিন্দারা।

বাসিন্দাদের অভিযোগ, রেল কর্তৃপক্ষ তাঁদের জন্য বিকল্প কোনও থাকার ব্যবস্থা না করেই, কোয়ার্টার খালি করে দেওয়ার কথা বলেছে। এদিকে, মঙ্গলবার দুপুরে আরপিএফ সেখানে এলে রেল কোয়ার্টারের বাসিন্দারা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাঁদের দাবি, বিকল্প ব্যবস্থা না করলে তাঁরা এই জায়গা ছেড়ে কোথাও যাবেন না।

বাসিন্দারা এদিন আরও দাবি করে বলেন, তাঁরা কয়েক দশক ধরে এখানে বসবাস করছেন। কারও বাবা, কারও দাদা বা নিকটাত্মীয়রা রেলে চাকরি করতেন। ফলে তখন থেকেই তাঁরা এখানে বসবাস করছেন। তাঁদের এখানকার ঠিকানায় ভোটার কার্ড, আধার কার্ড, প্যান সব রয়েছে। এখন তাঁরা কোথায় যাবেন। সেই প্রশ্নই ছুঁড়েছেন রেলের কাছে। এদিকে তাঁদের এই অবস্থায় পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন প্রাক্তন মেয়র পারিষদ বিভাস হাজরা।

তিনি ফোনে ডিআরএমকে তাঁদের বিষয়টি জানিয়েছেন। এদিন বিভাস হাজরা বলেন, “এরা এখানে প্রায় ৫০-৬০ বছর ধরে বসবাস করছেন। সকলের ভোটার কার্ড রয়েছে। আধার কার্ড রয়েছে। এদের পরিবারের ছেলেমেয়েরা এবার কেউ মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। এদের বাবা মা সারাজীবন এখানে ছিল। তাঁরা অবসরের পর তাঁদের ছেলেমেয়েরাও বড় হয়ে আজকে এখানে রয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই এদের এভাবে উচ্ছেদ করা যাবে না। বিকল্প ব্যবস্থা না করে বলপূর্বক এদের উচ্ছেদ করা যাবে না। আমি ডিআরএম, আরপিএফ-র সঙ্গে কথা বলেছি। আজকে আরপিএফ এসেছিল। আমি বলেছি বাড়ি মেরামতের প্রয়োজন থাকলে আমি প্রয়োজনে এক লক্ষ টাকা দিচ্ছি। বাড়ি মেরামত করে এদের এখানেই থাকার ব্যবস্থা করা হোক। জোর করে বাড়ি খালি করে দিয়ে উচ্ছেদ করা যাবে না। ডিআরএম বলেছেন আপনি চিঠি দিন। আমি দেখব।”