নয়াদিল্লি:  দেশজুড়ে পালিত হচ্ছে ৭১ তম প্রজাতন্ত্র দিবস। রাজধানী দিল্লির রাজপথে চলছে বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ। প্রজাতন্ত্র দিবসে এই বছর অতিথি হিসাবে রয়েছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জায়ের মাসিয়াস বোলসোনারো। প্রত্যেক বছর প্রজাতন্ত্র দিবসে কোনও না কোনও বিদেশি রাষ্ট্রনেতা প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকেন। সেই মতো এই বছর এসেছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট। প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজের প্রধান আকর্ষণ হল সামরিক শক্তি-প্রদর্শন। সেই মতো রাজধানীর রাজপথে একের পর সমরাস্ত্র বিশ্বের সামনে তুলে ধরছে ভারতীয় নৌসেনা, সেনাবাহিনী এবং ভারতীয় বায়ুসেনা।

কুচকওয়াজে অংশ নেওয়ার আগে রবিবার সকালে ন্যাশনাল ওয়ার মেমোরিয়ালে শহিদ মঞ্চে পৌঁছন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেখানে শহিদ জওয়ানদের শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে সোজা চলে যান রাজপথে। সেখানে উপস্থিত রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, সামরিক বাহিনীর শীর্ষ পদাধিকারী সহ তাবড় তাবড় ভিভিআইপি-রা। উপস্থিত দেশ-বিদেশের বহু বিশিষ্ট অতিথিরাও।

অন্যদিকে যে কোনও ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে গোটা দিল্লিজুড়ে। বহু-স্তরীয় সুরক্ষা ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাজপথ থেকে লাল কেল্লা– এই আট কিলোমিটার রাস্তার চারপাশ ঘিরে ফেলা হয়েছে কড়া নিরাপত্তায়। একটা মাছিও যাতে না গোলতে পারে সেদিকে বিশেষ নজরদারি চলছে। অন্যদিকে বহুতলের ওপর স্নাইপার্স ও শার্প-শ্যুটার্সদের মোতায়েন করা হয়েছে।

১০ হাজারের বেশি নিরাপত্তারক্ষী আজ মোতায়েন করা হয়েছে। এর পাশাপাশি, বহু সংখ্যক ড্রোন ও কয়েক’শ সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে নজরদারি রাখা হবে। মোতায়েন করা হয়েছে অ্যান্টি-এয়ারক্র্যাফট গান। রয়েছে ফেসিয়াল রিকগনিশন ডিভাইস।