মস্কো: একে অপরকে খেয়ে নিচ্ছে নিজেরাই। এমনকি সন্তানদেরও উপরও করছে আক্রমণ। মেরু ভাল্লুকদের সম্পর্কে এমনই ভয়ঙ্কর তথ্য সামনে আনলেন রশিয়ার বিজ্ঞানীরা। তাঁরা জানাচ্ছেন, ক্রমশন এইভাবে নিজেদের প্রজাতির সদস্যদের খেয়ে ফেলার প্রবণতা বাড়ছে।

পরিবেশবিদরা বলছেন, বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তনের ফল যে প্রাণীদের উপর মারাত্মক ভাবে পড়েছে তার মধ্যে মেরু ভাল্লুক অন্যতম। মেরু ভাল্লুকদের আরও বেশি করে স্বজাতির মাংস খেতে বাধ্য করছে জলবায়ু গত পরিবর্তন। এক রুশ বিজ্ঞানী এমনটাই দাবি করলেন।

সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, রুশ বিজ্ঞানী মর্ডভিনস্তেভের দাবি, মেরু ভাল্লুকদের মধ্যে নিজেদের জাতের ভাল্লুকের মাংস খাওয়ার ঘটনা অনেক আগেই থেকেই দেখা যায়। তবে তা ইদানিং তা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। প্রায়ই চোখে পড়ছে এমন ঘটনা।

এই প্রবণতা বাড়ার কারণ হিসেবে মানুষকেই দায়ি করেছেন মরভিনস্তেভ। তাঁর দাবি, এর পিছনে দুটি কারণ থাকতে পারে। একটা হতে পারে, প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব। অভাবে বড় বড় পুরুষ মেরু ভাল্লুকরা ছোট স্ত্রী ভাল্লুক ও বাচ্চাদের শিকার করে খাচ্ছে। শুধু তাই নয়, খিদের জ্বালায় মা ভাল্লুকদেরও বাচ্চাদের খেয়ে নিতে দেখা যাচ্ছে বলে দাবি করেছেন মর্ডভিনস্তেভ।

আর একটি কারণ হল, বিশ্ব উষ্ণায়নের জন্য সুমেরুর বরফ গলছে। সেই সঙ্গে ওই মেরু ভাল্লুকদের স্বাভাবিক বাসস্থানের এলাকায় খনিজ তেল উত্তোলন চলছে। ফলে নিজেদের বাসস্থান ছেড়ে সরে যেতে হচ্ছে মেরু ভাল্লুকদের। আর সেই কারণে ঠিক মতো শিকার পাচ্ছে না তারা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ