নয়াদিল্লি: বাংলার পর এবার গোটা দেশেই খুলে দেওয়া হচ্ছে ধর্মীয় স্থান। পঞ্চম লকডাউন আসলে পুরোপুরি লকডাউন নয়। তাই ৮ জুন থেকে আনেক ক্ষেত্রেই ছাড় দেওয়া হচ্ছে।

আগামী ৮ জুন থেকে দেশের সব ধর্মীয় স্থান খুলে দেওয়া হচ্ছে। নতুন এই লকডাউন বা পঞ্চ ম পর্যায়ের লকডাউন জারি থাকবে ৩০ জুন পর্যন্ত। কিন্তু ৮ জুন থেকে একাধিক ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হবে।

নতুন লকডাউনের গাইডলাইনে ফেজ ওয়ানে উল্লেখ করা হয়েছে যে, সাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হবে সব ধর্মীয় স্থান।

এর আগে একাধিক রাজ্যে ধর্মীয় স্থান খোলার ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গেও খুলে দেওয়া হচ্ছে ধর্মীয় স্থান।

শুক্রবার নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলন করে মুখ্যমন্ত্রী জানান, মন্দির মসজিদ গির্জা গুরুদ্বার খুললেও মানতে হবে বেশ কিছু নিয়ম। যেমন কোনও ধর্মস্থানে একসঙ্গে ১০ জনের বেশি ঢোকতে পারবেন না। প্রত্যেককেই মাস্ক পরতে হবে। মন্দির মসজিদে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা রাখতে হবে। তবে ধর্মস্থানে কোনও জমায়েতও করা যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতাও করেন দিলীপ ঘোষ। বিজেপি রাজ্য সভাপতির মতে, ‘এখনই মন্দির, মসজিদ খুলে দেওয়া হলে রাজ্য হু হু করে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাবে।’ মুখ্যমন্ত্রীকে তাঁর সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে আবেদন জানিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

বর্তমান পর্যায়ে আনলক ১ -এ অর্থনীতির দিকে বিশেষ নজর দেওয়া হচ্ছে বলে জানাচ্ছে গাইডলাইন। রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলির সঙ্গে পরামর্শের পরেই এই নতুন গাইডলাইন জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

এর আগে যেসব ক্ষেত্রে বিধি নিষেধ ছিল, এবার কনটেনমেন্ট জোনের বাইরে সেগুলি সবই চালু করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের জারি করা নিয়মের ভিত্তিতে সব কিছু চালু হবে। অন্যদিকে স্কুলগুলির সঙ্গে পরামর্শের পরে জুলাই মাসে স্কুল পুনরায় চালু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে স্কুল-কলেজ খোলার আগে অভিভাবক, রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV