মুম্বই: জিও-র হাত ধরেই ভারতের টেলিকম দুনিয়ায় এসেছে বিপ্লব। জলের দরে 4G স্পিডের ইন্টারনেট এখন হাতের মুঠোয়। বাজারে সস্তার ফোনও নিয়ে এসেছে জিও। বড় স্ক্রিন না থাকলেও সেই ফোনে রয়েছে একাধিক স্মার্টফোনের ফিচার। তবে এবার আরও একধাপ এগিয়ে জিও নিয়ে আসছে বড় স্ক্রিনের ফোন।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, রিলায়েন্স জিও-র তরফ থেকে এক আধিকারিক জানিয়েছেন যে বাজারে বড় স্ক্রিনের ফোন নিয়ে আসতে চলেছে রিলায়েন্স জিও। এর জন্য তাঁরা মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির সঙ্গে যোগাযোগ করছে বলেও জানিয়েছেন।

সূত্রের খবর, মার্কিন মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা ‘ফ্লেক্স’-এর সঙ্গে কথা চলছে জিও-র। অন্তত ১০ কোটি মোবাইল ফোন বানিয়ে দেওয়ার জন্য কথাবার্তা চলছে দুই সংস্থার। তবে ঠিক কবে এই ফোন বাজারে আসছে তা জিও-র তরফে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়নি। এটি নতুন ধরনের ফোন হবে নাকি বাজারে থাকা জিও ফোনেরই বড় স্ক্রিনের ভার্সান আসবে, তা জানা যায়নি।

তবে স্মার্টফোনের বাজারে নতুন নয় জিও। বছর দুয়েক আগেই Lyf নামের একটি স্মার্টফোন বাজারে এনেছিল এই সংস্থা। তবে এবার যে স্মার্টফোনের বাজারে জিও বেশ বড়সড় পদক্ষেপ নিতে চলেছে, তা স্পষ্ট।

এদিকে চলতি মাসের শুরুতেই সুপ্রিম কোর্ট অনিল অম্বানির সংস্থা আরকম-কে স্পেকট্রাম বিক্রি করার অনুমতি দিয়েছে। ফলে মুকেশ অম্বানির রিলায়েন্স জিও-কে আরকম এবার তাদের হাতে থাকা সমস্ত স্পেকট্রাম বিক্রি করতে পারবে। তবে তার জন্য ১৪০০ কোটি টাকা কর্পোরেট গ্যারান্টি জমা দিতে হবে যাতে প্রয়োজনীয় ‘নো অবজেকশন সার্টিফিকেট’ বা এনওসি পায়।

গত ১ অক্টোবর ঋণভারে জর্জরিত আরকম-কে তাদের হাতে থাকা স্পেকট্রাম জিও-কে বিক্রি করার বিষয়ে অনুমতি দিয়েছিল টিডিস্যাট। তবে টিডিস্যাট-এর সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে যায় কেন্দ্রীয় টেলিকম দপ্তর। সর্বোচ্চ আদালতে পিটিশন ফাইল করে টেলিকম দপ্তর জানায়, তারা স্পেকট্রাম বিক্রির তখনই অনুমোদন দেবে যখন আরকম অথবা রিলায়েন্স জিও ২৯০০ কোটি টাকার ব্যাংক গ্যারান্টি দেবে।