বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইতিমধ্যে নিজেদের শক্ত জায়গা তৈরি করে নিয়েছে ‘Xiaomi’। চিনের এই সংস্থা ভারতের বাজারে দ্বিতীয় জনপ্রিয় স্মার্টফোন হিসেবে আছে। আশপাশের দেশগুলোতেও Samsung’এর খুব কাছাকাছি রয়েছে। এর জনপ্রিয় একটি সিরিজ Redmi। এর Note 4 বা 4 মডেলের পর এবার এসেছে Y1। এর আগে Xiaomi redmi y1 স্মার্টফোন বাজারে আসার কথা জানা গিয়েছিল। সেইমত কিছু দিন আগেই বাজারে এসেছে Y1 এবং Y1 Lite।

রেডমি Y1-কে Note 5 এর রিব্র্যান্ডেড মডেল হিসেবে বিবেচনা করা যায়। এর বিশেষত্ব মূলত সেলফি ক্যামেরার স্বাদ মেটাতেই এই ফোন এসেছে। ৫.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের একটি ফোনটির দাম করা হয়েছে 6,999টাকা। একই ধরনের অনেক ফোন আছে যেগুলোর দাম 10,000টাকা। ইন্টারনাল 32 GB স্টোরেজ এবং 3GB র‍্যাম আছে। স্ন্যাপড্রাগন ৪৩৫ প্রসেসর দেওয়া হয়েছে।

এর ক্যামেরা দারুণ। পেছনে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা রয়েছে। আর সামনে এলইডি ফ্ল্যাশসহ দেওয়া হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। ব্যাটারি ৩০৮০এমএইইচ। Redmi Note 4 এর মতো ৪০০০এমএএইচ ব্যাটারি না দেওয়া হলেও ভারী কাজ একটানা ১২ ঘণ্টা চালিয়ে যেতে পারবেন। Y1 এর পেছনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরও দেওয়া আছে। অ্যান্ড্রয়েড নুগেট ৭.০.১ অপারেটিং সিস্টেমে চলবে ফোন। এর আরেকটি বড় বিষয় হলো এর পারফরমেন্স। যতটুকু শক্তি এতে দেওয়া হয়েছে তার পুরোটাই ব্যবহার করতে পারবেন। মাল্টি-টাস্কিংয়ের ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হয় না। এটা Xiaomi’র সবচেয়ে দ্রুতগতির ফোন নয়। কিন্তু দামের তুলনায় অনেক ভালো ফোন।

এর ১৬ মেগাটিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা ইউজারের জন্যে রীতিমতো একটি চমক। অন্ধকার ঘরে ছবি তুললেও চিন্তা নেই। আপনার চেহারাটা পরিষ্কার করবে দারুণ এক এলইডি ফ্ল্যাশ। এর মেটাল বডি নেই। তবে ডিজাইন, স্টাইল আর আকারের দিক থেকে Y1 এর সঙ্গে Note4 এর অনেক মিল রয়েছে। তবে Y1 এর সামনের ক্যামেরাটিই এর মূল বৈশিষ্ট্য। অনেক ভালো ফোনকেও পেছনে ফেলবে।