অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ-০  রিয়াল মাদ্রিদ-০

মাদ্রিদ: সপ্তম সাক্ষাতেও অপেক্ষার শেষ হল না রিয়ালের৷ ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো ও গ্যারেথ বেলের যুগলবন্দিতেও অ্যাটিলেটিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে জয় অধরা রিয়াল মাদ্রিদের৷ মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে মাদ্রিদ ডার্বি শেষ হল গোল শূন্যে৷
চলতি মরশুমে একবারও ‘অ্যাটলেটিকো বধ’ করতে পারল না বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ক্লাব রিয়াল ৷ চারবার হার ও শেষ তিনবার ড্র৷ মঙ্গলবার এস্তাদিও ভিসেন্ট কলডেরিয়ন স্টেডিয়ামে অপেক্ষার অবসান হবে, এমনটাই আশা করেছিলেন রিয়াল কোচ কার্লো অ্যান্সেলোত্তি৷ রোনাল্ডো-বেল-মার্সেলো! থ্রি-মাস্কেটিয়াসের পায়ে আশা আরও জোরালো হয়েছিল অ্যান্সেলোত্তির৷ কিন্তু অটলেটিকো গোলকিপার জ্যান অবল্যাক দস্তানায় আটকে গেল রোলান্ডো-বেলের সব প্রচেষ্টা৷ অপেক্ষা আগামী বুধবার স্যান্টিয়াগো বার্নাবুহ্যে দ্বিতীয় লেগের৷ঘরের মাঠে অ্যাটলেটিকোর প্রাচীর ভেদ করার আরও একবার সুযোগ পাবেন রোনাল্ডোরা৷real-madrid
৭২ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রেখেও অ্যাটলেটিকোর জালে বল জড়াতে পারল না রিয়াল ফুটবলাররা৷ রিয়ালের ১৭টি শর্টের আটটি ছিল গোলে৷ কিন্তু অবল্যাকের প্রহরা ভেদ করে অ্যাটিলেটিকোর জাল ঢুকল না৷ সেই তুলনায় অ্যাটলেটিকো রিয়ালের গোলে রেখেছিল মাত্র দু’টি শর্ট৷ ম্যাচের চতুর্থ মিনিটেই বেলের দুরন্ত শর্ট আটকে দিয়ে শুরুতেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন অবল্যাক৷ যা পুরো ম্যাচেই আধিপত্য বজায় রাখল৷ শেষ মিনিটে রোনাল্ডোর শর্ট আটকে অপ্রতিরোধ্য থেকে মাঠ ছাড়েন স্লোভিয়ান গোলরক্ষক৷
প্রথমার্ধে যেন বেশি অপ্রতিরোধ্য ছিলেন অবল্যাক৷কিন্তু ব্রেকের পরও দলকে ‘ব্রেক-থ্রু’ দিতে ব্যর্থ রোনাল্ডো-বেলরা৷ ন’ মিনিটে রোনাল্ডোর ফ্রি-কিক আটকান অবল্যাক৷বিরতির ঠিক আগে জেমস রডিগেজের শর্ট আটকে গোল শূন্য অবস্থায় মাঠ ছাড়েন অ্যাটলেটিকো গোলকিপার৷ দ্বিতীয়ার্ধেও রিয়ালের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয় অবল্যাক দস্তানায়৷
মাদ্রিদ ডার্বির আগে অ্যাটলেটিকোর মাঠে বেলকেই ‘তরুপের তাস’ হিসেবে ধরেছিলেন রিয়াল কোচ৷ গতবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে ওয়ালস স্ট্রাইকারের গোলেই ট্রফি ঘরে তুলেছিল রিয়াল৷ এবারও তাই বেলের গুরুত্ব অনুভব করে দল৷ যদিও চলতি মরশুমে রোনাল্ডোর পাশে বেলের দূর্বল পারফরম্যান্স ফুটবলমহলে প্রশ্ন উঠে৷ bell
২০১৩ সালে বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলার হিসেবে রিয়ালে যোগ দিয়েছিলেন বেল৷ থাইয়ে চোটের কারণে স্প্যানিশ লা লিগায় গত ম্যাচ এইবারের বিরুদ্ধে রিজার্ভ বেঞ্চেই ছিলেন তিনি৷ ম্যাচের এক দিন আগেই অ্যান্সেলোত্তি জানিয়ে দেন, ডার্বির জন্য ১০০ শতাংশ ফিট বেল৷ পাঁচ মাস পর প্রথমবার সর্বশক্তি নিয়ে মঙ্গলবার মাঠে নেমে ছিল রিয়াল৷ সাসপেনশন কাটিয়ে এদিন দলে ফিরেছিলেন জেমস রডরিগেজ ও টনি ক্রুস৷ কিন্তু তাতেও যে অপেক্ষার অবসান হল না!
গত মরশুমে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের ৪-১ গোলে হারিয়ে দশম ইউরোপিয়ান কাপ জিতেছিলেন রোনাল্ডোরা৷ তারপর থেকে দিয়েগো সিমিওনের তত্ত্বাবধানে রিয়ালের সঙ্গে শেষ সাতবারের সাক্ষাতে অপরাজিত অ্যাটলেটিকো৷ রিয়ালকে হারিয়ে সুপার কাপ, কিংস কাপ ও দু’বার লা লিগা জিতেছে তারা৷তবে, আগামী বুধবার রিয়ালের ঘরের মাঠে ফিরতি লেগে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে সিমিওনের ছেলেদের৷