মাদ্রিদ: মাদ্রিদ ডার্বিতে অ্যাটলেটিকোকে রুখে দিল রিয়াল৷ শেষ পাঁচ বছরে মাদ্রিদ ডার্বিতে অ্যাটলেটিকোর জয়ের সম্ভাবনায় জল ঢাললেন করিম বেঞ্জিমা৷ ম্যাচের অন্তিমলগ্নে গোল করে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের নিশ্চিত জয় রুখে দিলেন এই ফরাসি তারকা৷

মাদ্রিদ ডার্বিতে অ্যাটলেটিকোকে রুখে দিয়ে বার্সলোনার সুবিধা করে দিল রিয়াল৷ ফলে খেতাবের লড়াইয়ে অ্যাটলেটিকোর ঘাড়ে নি:শ্বাস ফেলছেন মেসিরা৷ কারণ শনিবার ওসাসুনাকে ২-০ হারিয়ে লিগ টেবলে শীর্ষে থাকা অ্যাটলেটিকোর সঙ্গে পয়েন্টের ব্যবধান কমাল বার্সেলোনা৷ ২৫ ম্যাচে ১৮টি জয় ও পাঁচটি ড্র করে ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবলে শীর্ষে রয়েছে অ্যাটলেটিকো। আর ২৬ ম্যাচে ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে রয়েছে বার্সেলোনা। সমসংখ্যক ম্যাচ খেলে ১৬টি জয় এবং ৬টি ড্র করে ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ।

রবিবার রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ের সাক্ষী থাকল মাদ্রিদ ডার্বিতে৷ ম্যাচের ৮৭ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকে পয়েন্ট ভাগ করে নিতে হল অ্যাটলেটিকোকে৷ লুইস সুয়ারেজের গোলে দীর্ঘ সময় এগিয়ে থেকেও জিততে পারেননি৷ মেট্রোপলিটানো স্টেডিয়ামে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ও রিয়াল মাদ্রিদ ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র হয়৷ ফলে দিয়েগো সিমেওনের দলকে এক পয়েন্ট নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়৷ মাদ্রিদ ডার্বি জিতলে দুই নম্বরে থাকা বার্সেলোনার সঙ্গে ৮ পয়েন্টের ব্যবধান বাড়িয়ে নিতে পারত অ্যাটলেটিকো৷ কিন্তু বেঞ্জিমার শেষ মুহূর্তের গোলে সিমেওনের দলের সেই আশায় জল ঢেলে দেয়৷

এর ফলে টানা দু’ ম্যাচ ড্র করল রিয়াল৷ আর শেষ ছ’টি ম্যাচের মধ্যে তিনটিতে ড্র করে অ্যাটলেটিকো৷ চোট কাটিয়ে দলে ফিরেই গোল করে রিয়ালকে এক পয়েন্ট এনে দিলেন বেঞ্জিমা। ম্যাচের ১৫ মিনিটে প্রথম সুযোগেই গোল করে অ্যাটলেটিকোকে এগিয়ে দেন মার্কোস ইয়োরেন্তে৷ প্রতি-আক্রমণে নিজেদের অর্ধ থেকে বল নিয়ে এগিয়ে দেন সুয়ারেজকে। বল স্পর্শ না-করে দৌড়ে জায়গা করে নিয়ে চমৎকার ফিনিশিংয়ে গোল করেন উরুগুয়ের এই স্ট্রাইকার। চলতি মরশুমে লিগে ১৭টি গোল হয়ে গেল সুয়ারেজের৷ যা এখনও পর্যন্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ৷ ২ গোল বেশি করে শীর্ষে রয়েছেন বার্সা অধিনায়ক লিওনেল মেসি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে রিয়াল। ৮০ মিনিটে বেঞ্জিমার দু’টি প্রচেষ্টা রুখে দেন অ্যাটলেটিকোর ত্রাতা ওবলাক। তবে ৮৮ মিনিটে বেঞ্জিমাকে রুখতে পারেননি৷ কাসেমিরোকে বল বাড়িয়ে ডি-বক্সে ফাঁকা জায়গা খুঁজে নেন ফরাসি স্ট্রাইকার। গোল করে রিয়ালকে এক পয়েন্ট এনে দেন বেঞ্জিমা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।