কর্পূর সাধারণত পুজোর কাজে ব্যবহার হয়ে থাকে৷ বাজারে মূলত দুই ধরণের কর্পূর পাওয়া যায়। একটি গুল্ম থেকে পাওয়া যায় এবং অন্যটি কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হয়। পুজোয় যে কর্পূর ব্যবহার হয় তা কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হয়৷ কিন্তু কর্পূর শুধু পুজোর কাজেই নয় বিভিন্ন রোগ নিরাময়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে৷ এছাড়াও রূপচর্চার ক্ষেত্রে ও ঘরোয়া টোটকা হিসেবে এটি বেশ উপকারি৷ তবে জেনে নেওয়া যাক কর্পূরের উপকারিতা ও ব্যবহার৷

কর্পূর গুড়ো করে তেলের সঙ্গে মিশিয়ে ব্রণর জায়গাগুলিতে মালিশ করুন৷ সপ্তাহে তিন চার দিন করুন দেখবেন একেবারে ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর হয়ে যাবে। অলিভ অয়েল, নারকেল তেল বা আমন্ড তেল ব্যবহার করতে পারেন৷

চুলকানি ও র‍্যাশের সমস্যায় কর্পূর হতে পারে প্রতিকার৷ এক টুকরো কর্পূরের সঙ্গে সামান্য জল মেশান৷ আক্রান্ত স্থানটি এই মিশ্রণটি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন৷ আস্তে আস্তে চুলকানি কমে যাবে৷ কিন্তু কখনওই কাটা বা ক্ষত জায়গায় কর্পূর ব্যবহার করবেন না৷ কারণ কর্পূর রক্তের সঙ্গে মিশে গেলে বিষক্রিয়া হতে পারে৷

আপনি নিয়মিত মাথায় যে তেল ব্যবহার করেন তার সঙ্গে কর্পূর মিশিয়ে চুলে ব্যবহার করুন৷ এতে চুল পরা কমে যাবে৷ চুলে শ্যাম্পু করার আগে এই তেলের মিশ্রণ মাথার তালুতে ও চুলে ব্যবহার করুন৷ এটি খুশকি নিরাময়েও সাহায্য করবে৷

পেশীতে সংকোচনের সমস্যা হলে সর্ষের তেল বা নারকেল তেলের সঙ্গে কর্পূর দিয়ে তাপ দিন যতক্ষণ না তা পুরোপুরি মিশে যায়। তারপর মিশ্রণটির তাপমাত্রা কমলে ঈষদুষ্ণ অবস্থায় পায়ে মালিশ করুন৷ দেখবেন আরাম পাবেন৷

শিশুর বুকে কফ জমে গেলে তা দূর করতে সাহায্য করে কর্পূর৷ সরষে বা নারকেল তেলের সঙ্গে সামান্য কর্পূর মিশিয়ে তাপ দিন৷ উষ্ণ অবস্থায় এই তেলের মিশ্রণটি শিশুর বুকে ও পিঠে মালিশ করুন৷

ঘরে পিঁপড়ের উপদ্রব বেশি হলে এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণের জন্য ক্ষতিকর কীটনাশকের পরিবর্তে ব্যবহার করুন কর্পূর৷ কর্পূর সামান্য জলের সঙ্গে মিশিয়ে নিন এবং পিঁপড়ের আনাগোনা যেখানে সেই জায়গাগুলিতে এই মিশ্রণটি ছিটিয়ে দিন৷ দেখবেন পিঁপড়েরা উধাও হয়ে গিয়েছে৷ ঘরকে পিঁপড়ে মুক্ত করার সবচেয়ে সহজ উপায় এটি৷

ঘরের অন্ধকার স্থানে কর্পূর কাপরে মুড়ে রেখে দিন৷ এটি শুধু ঘরের বাতাসে সুগন্ধই ছড়াবে না বরং মশাও দূর করবে৷

শরীরের ব্যথা ও ফোলা কমাতে কর্পূর ব্যবহার করা হয়৷

জিভে ঘা হলে জলের সঙ্গে কর্পূর গুড়ো গুলে মুখ ধুয়ে ফেলুম৷ এতে জিভের ঘা কমে যায়৷

বাগানে কর্পূর গুড়ো করে ছড়িয়ে দিলে পোকার হাত থেকে নিশ্চিত উপকার পাওয়া যায়। গাছের কোনও ক্ষতি হয় না।

বর্ষাকালে ঘণ্টাখানেক দরজা জানালা বন্ধ থাকলে ঘরে দুর্গন্ধ হয়৷ সেই গন্ধের হাত থেকে মুক্তি পেতে হলে ঘরের কোনে এক টুকরো কর্পূর ছড়িয়ে রাখতে পারেন৷ এতে গন্ধ কেটে যায়৷

যে আলমারিতে রুপোর বাসন থাকে তাতে এক টুকরো কর্পূর রেখে দিন৷ এতে রুপোর বাসন চকচকে থাকবে।

জানালার কাঁচ পরিষ্কার করতে কর্পূর আদর্শ জিনিস৷