আবুধাবি: দুর্দান্ত ওপেনিং পার্টনারশিপের পর হঠাৎই ছন্দপতন৷ একটা সময় মনে হয়েছিল মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের সামনে ২০০ বেশি রানের টার্গেট দেবে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর৷ কিন্তু জসপ্রীত বুমারাহের ভয়ংকর বোলিংয়ের সামনে কোনওক্রমে দেড়শো রানের গণ্ডি টপকেছে আরসিবি৷ নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৪ রান তুলেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স৷

এই ম্যাচ জিতলেই ছাড়পত্র মিলবে প্লে-অফের৷ টস জিতে রান তাড়া করার সিদ্ধান্ত নেয় মুম্বই ইন্ডিয়ান্স৷ কিন্তু তাদের শুরুটা ভালো হয়নি৷ আরসিবি-র দুই ওপেনার দেবদূত পারিক্কল ও জোস ফিলিপ দারুণ শুরু করেন৷ ওপেনিং জুটিতে অষ্টম ওভারে ৭১ রান তোলে দু’জনে৷ ২৪ বলে তিনটি বাউন্ডারি ও একটি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ৩৩ রান করেন ফিলিপ৷ আরসিবি-র ওপেনিং জুটি ভাঙেন রাহুল চাহার৷

ফিলিপ আউট হলেও ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান পারিক্কল৷ তবে তাঁকে বেশিক্ষণ সঙ্গ দিতে পারেননি ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলি৷ মাত্র ৯ রান করে জসপ্রীত বুমরাহের শিকার হন বিরাট৷ এরপর এবি ডি’ভিলিয়ার্স এসেই আক্রমণাত্মক শুরু করলেও বেশিক্ষণ তিনিও ক্রিজে থাকতে পারেননি৷ মাত্র ১২ বলে ১৫ রান করে কাইরন পোলার্ডের বলে আউট হন এবি৷

তারপর একই ওভারে পারিক্কল ও শিভম দুবেকে ডাাগ-আউটে ফেরেত পাঠিয়ে মুম্বইয়কে ম্যাচ ফেরান বুমরাহ৷ ৪৫ বলে এক ডজন বাউন্ডারি ও একটি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ৭৪ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন পারিক্কল৷ এদিন আইপিএলে তাঁর একশোতম উইকেট শিকার করেন বুমরাহ৷ ৪ ওভারে একটি মেডেন-সহ মাত্র ১৪ রান খরচ করে ৩টি উইকেট তুলে নেন মুম্বইয়ের এই ডানহাতি পেসার৷

সপ্তম উইকেটে অবিভক্ত ২৬ রান যোগ করে দলকে দেড়শো রানের গণ্ডি টপকাতে সাহায্য করেন গুরকীরত সিং ও ওয়াশিংটন সুন্দর৷ গুরকীরত সিং ১১ বলে ১৪ এবং ওয়াশিংটন ৬ বলে ১০ রান করেন৷ মুম্বইয়ের বুমরাহ দারুণ বোলিং করলেও এদিন মার খান ট্রেন্ট বোল্ট, জেমস প্যাটিনসন ও রাহুল চাহার৷

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।