বেঙ্গালুরু: জয়ের ছন্দ খুঁজে পেতে লেগেছিল সাত ম্যাচ। কিন্তু চলতি আইপিএলের মাঝপথে কোনও জাদুবলে হঠাতই যেন বদলে গেল আরসিবি। কলকাতা, চেন্নাইয়ের পর পঞ্জাবকে হারিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগে টানা তৃতীয় জয় তুলে নিল বিরাটের দল। বুধবার চিন্নাস্বামীতে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবকে ১৭ রানে পরাজিত করল আরসিবি। অন্যদিকে শেষ ৫ ম্যাচের ৪টিতেই হেরে হায়দরাবাদকে সরিয়ে প্রথম চারে যাওয়া হল না অশ্বিনের দলের। ২০৩ রানের পাহাড়প্রমাণ লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে ১৮৫ রানে থমকে গেল কিংস ইলেভেনের ইনিংস।

বড় রান তাড়া করতে নেমে যেমনটা শুরু করা দরকার, ঠিক তেমনটাই এদিন শুরু করেন দুই পঞ্জাব ওপেনার কেএল রাহুল ও ক্রিস গেইল। মাত্র ১০ বলে ২৩ করে ক্যারিবিয়ান ওপেনার যখন আউট হন, পঞ্জাবের রান তখন ৩.২ ওভারে ৪২। দ্বিতীয় উইকেটে রাহুল-ময়াঙ্ক জুটির ৩৫ বলে ৫৯ রানের পার্টনারশিপ আরসিবি’কে বেশ কিছুটা ব্যাকফুটে ঠেলে দেয়।

এরপর ময়াঙ্ক-রাহুলের উইকেট তুলে নিয়ে কিংস ইলেভেনকে পালটা চাপে ফেলে দেয় আরসিবি। রাহুল করেন ২৭ বলে ৪২। ২১ বলে ৩৫ রান করে আউট হন ময়াঙ্ক। চতুর্থ উইকেটে মিলার-পুরান জুটি ৬৮ রান যোগ করলেও আরসিবি বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ম্যাচ কখনোই হাতের বাইরে যায়নি বিরাটের দলের। মিলার ২৫ বলে মাত্র ২৪ করলেও ২৮ বলে ৪৬ রানের অবদান রাখেন ক্যারিবিয়ান উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

যদিও শেষরক্ষা হয়নি। শেষদিকে নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট খুঁইয়ে লক্ষ্যমাত্রা থেকে ১৮ রান দূরে থেমে যেতে হয় প্রীতি জিন্টার দলকে। ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়ে ৩ উইকেট দখল করেন উমেশ যাদব। ৩৩ রান দিয়ে ২টি উইকেট নেন নভদীপ সাইনি। ১টি করে উইকেট নেন স্টোওনিস ও মইন আলি।

প্রথম চারে জায়গা করে নেওয়ার লক্ষ্যে অ্যাওয়ে ম্যাচে টস জিতে এদিন আরসিবি’কে ব্যাটিংয়ে আমন্ত্রণ জানান পঞ্জাব দলনায়ক রবি অশ্বিন। অধিনায়ক কোহলি ৮ বলে ১৩ রান করে ফিরলেও ওপেনে নেমে আরসিবি’র হয়ে দুর্দান্ত শুরু করেন পার্থিব প্যাটেল। ২৪ বল খেলে অর্ধশতরান থেকে ৭ রান দূরে আউট হন পার্থিব। এরপর দ্রুত ফেরেন মইন আলি (৪) ও আকাশদীপ নাথ (৩)।

৯ ওভারে ৮১ রানে ৪ উইকেট খোয়ানোর পর আরসিবি ব্যাটিংয়ে হাল ধরেন ডি’ভিলিয়ার্স-স্টোওনিস জুটি। বিপক্ষ বোলারদের উপর ছড়ি ঘুরিয়ে অজি ব্যাটসম্যানকে সঙ্গী করে ৩৫ বলে অর্ধশতরান পূর্ন করেন এবিডি। ১৯ তম ওভারে মহম্মদ শামিকে টানা ৩টি ছক্কা হাঁকান এবিডি। শেষ অবধি ৪৪ বলে ৮২ রানে অপরাজিত থেকে যান তিনি।

প্রথমদিকে কিছুটা মন্থর শুরু করলেও শেষদিকে জ্বলে ওঠেন স্টোওনিসও। ইনিংসের শেষ ৪ বলে দু’টি বাউন্ডারি এবং দু’টি ওভার বাউন্ডারি সহযোগে দলকে পাহাড়প্রমাণ ২০২ রানে পৌঁছে দেন তিনি।