নয়াদিল্লি : করোনায় কাঁপছে গোটাদেশ। অদৃশ্য ব্যাধির দাপটে বিপর্যস্ত জনজীবন। করোনার বছর ঘুরলেও রেহাই নেই অতিমারীর(Pandemic) হাত থেকে। এখনও দেশজুড়ে অব্যাহত করোনার সেকেন্ড ওয়েভ (Second wave of Coronavirus)।

গত একবছর ধরে দফায় দফায় দীর্ঘ মেয়াদি লকডাউনে বসে গিয়েছে অর্থনীতির চাকা। নতুন বছর ২০২১ সালের চারমাস ইতিমধ্যে অতিক্রান্ত তবুও রেহাই নেই মারণ ব্যাধির ছোবল থেকে।

আর এই অবস্থায় দেশের অর্থনীতিকে ঘুরিয়ে দাঁড় করাতে বড় ঘোষণা করলেন রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার(RBI) গভর্নর শক্তিকান্ত দাস (Shaktikanta Das)।

বুধবার সকালে দেশের করোনা পরিস্থিতিতে সম্পর্কে বলতে গিয়ে আরবিআই (RBI) গভর্নর বলেন, ” মহামারীর কারণে মেডিকেল পরিষেবায় তহবিলের শক্তি বাড়াতে ৫০ হাজার কোটি টাকার ‘টার্ম লিকুইড ফেসিলিটি’-র(term-liquidity facility) অর্থাৎ অতিরিক্ত নগদ জোগানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর ফলে ২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত মেডিকেল পরিষেবা ক্ষেত্রে বেশি ঋণ দিতে পারবে ব্যাংকগুলি। টিকা নির্মাতা সংস্থা থেকে শুরু করে হাসপাতালগুলিও এই সুবিধা পাবে।”

এদিন তিনি আরও জানান, করোনাকালে দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক মন্দা দেখা দিয়েছে। আরবিআই-এর (RBI) এখন একমাত্র উদ্দেশ্যই হল করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করে দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া।

করোনার কারণে চাকরির বাজারে যেমন মন্দা দেখা দিয়েছে তেমনই ব্যবসা বাণিজ্যেও অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিয়েছে। একটানা লকডাউন, নাইট কার্ফু ও অন্যান্য কারণে ব্যবসার বাজার ভালো নয়। এই অবস্থায় আর্থিক ঝুঁকি নিয়ে অনেকেই যেমন নতুন কিছু শুরু করতে চাইছেন না তেমনই বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়েও নিতে শিখে গিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এই অবস্থায় ব্যবসায়ীদের ঘাড়ে চাপ কমাতে ঋণ ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ সুবিধা দেওয়ার কথাও জানিয়েছেন আরবিআই গভর্নর। এছাড়াও বড় ব্যবসায়ী, মাঝারি ও ক্ষুদ্র(MSMSE) ব্যবসায়ীদের জন্যও ঋণ দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেছেন তিনি।

এদিকে দেশের বর্তমান করোনা পরিস্থিতি চার লাখের ঘরে রান করছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৮২ হাজার ৩১৫ জন। মঙ্গলবার এই সংখ্যা ছিল ৩ লক্ষ ৫৭ হাজার ২২৯ জন। গত সপ্তাহে যেভাবে ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছিল সংক্রমণ, গত কয়েকদিনের সংখ্যা তার চেয়ে কিছুটা কম ছিল। ফলে আশা জেগেছিল দেশবাসীর মনে। কিন্তু এদিনের রিপোর্ট সেই আশায় জল ঢেলে দিল। মঙ্গলবার যেখানে ৩ হাজার ৪৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল সেখানে বুধবার রিপোর্ট বলছে মৃতের সখ্যা ৩ হাজার ৭৮০। অর্থাৎ মৃতের সংখ্যাও গত কয়েকদিনের তুলনায় বেশ কিছুটা বেড়েছে। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ছাড়িয়ে গিয়েছে। বর্তমানে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ০৬ লক্ষ ৬৫ হাজার ১৪৮ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লক্ষ ২৬ হাজার ১৮৮। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনামুক্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৩৮ হাজার ৪৩৯ জন। বর্তমানে দেশের মোট অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ৩৪ লক্ষ ৮৭ হাজার ২২৯। দেশে এখনও পর্যন্ত সবমিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৬৯ লক্ষ ৫১ হাজার ৭৩১ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে টিকা পেয়েছেন মোট ১৬ কোটি ৪ লক্ষ ৯৪ হাজার ১৮৮ জন।

দেশের এই অবস্থায় গত একবছরের চাকরির বাজারেও দেখা দিয়েছে ব্যাপক মন্দা। কর্মী ছাঁটাই, ওয়ার্ক ফ্রম সহ একাধিক ইস্যুতে চাকরির বাজারেও কোপ বসিয়েছে করোনা। দেশে বেকারের সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৭০ লাখ।

সেন্টার ফর মনিটারিং ইন্ডিয়ান ইকনমি প্রাইভেট লিমিটেডের তথ্য বলছে দ্বিতীয় ঢেউয়ের তোড়ে চাকরি হারিয়েছেন অন্তত ৭০ লক্ষ মানুষ। মার্চ মাসে বেকারত্ব বৃদ্ধির হার ছিল ৫.৬ শতাংশ। এপ্রিলে সেটাই বেড়ে ৮ শতাংশ হয়ে গিয়েছে। সিএমআইইর(CMIEE) ম্যানেজিং ডিরেক্টর মহেশ ভ্যাস (Mahesh Vash) জানিয়েছেন, চাকরি কমতে শুরু করেছে, তার সম্ভবত কারণ লকডাউন। আর এই পরিস্থিতিতে আরবিআই(RBI) গভর্নরের আজকের এই ঘোষণা দেশের অর্থনীতিকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করবে বলে মনে করা হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.