নয়াদিল্লি: রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস শনিবার বিভিন্ন ব্যাংকের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করলেন। বৈঠকে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা এবং করোনা সংকটের কারণে ‌ আর্থিক ব্যবস্থায় যে সমস্যা দেখা দিয়েছে তা কমাতে যেসব ‌ পদক্ষেপ করা হয়েছে তা চালু করার ব্যাপারে আলোচনা হয়।

এই বৈঠক আলাদা আলাদা দুটি পর্যায় হয় ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে। প্রধান প্রধান রাষ্ট্রায়ত্ত এবং ‌ বেসরকারি ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইওরা ওই বৈঠকে ছিলেন বলে রিজার্ভ ব্যাংক বিবৃতিতে জানিয়েছে।

প্রথমেই রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর ব্যাঙ্কগুলির প্রশংসা করেছেন এই লক ডাউনের সময়েও স্বাভাবিক থেকে প্রায় স্বাভাবিক কাজকর্ম চালিয়ে যাওয়ার জন্য।এই বৈঠকে অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে আলোচনার জন্য উঠে এসেছে বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা এবং আর্থিক ক্ষেত্রে স্থিতিশীলতার বিষয়টি। নন-ব্যাংকিং আর্থিক সংস্থা, মাইক্রোফিনান্স, হাউসিং ফিনান্স, মিউচুয়াল ফান্ড সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ঋণের প্রবাহ এবং লকডাউন পরবর্তী সময়ে কার্যকরী মূলধন সরবরাহের ব্যবস্থা বিশেষত ক্ষুদ্র ছোট মাঝারি উদ্যোগের কাছে পৌঁছানো যায়।

ঋণ পরিশোধের ক্ষেত্রে তিন মাসের যে মোরাটোরিয়াম ঘোষণা করা হয়েছিল সেগুলি কেমন অবস্থায় রয়েছে তারও পর্যালোচনা করা হয় এই বৈঠকে। এই আর্থিক মন্দার সময় ব্যাঙ্কগুলির বিদেশের শাখাগুলির উপর কেমন ভাবে নজরদারি রাখা হচ্ছে সেই বিষয়টিও উঠে আসে এদিনের আলোচনায়। রিজার্ভ ব্যাংক ঘোষণা করেছে বিভিন্ন পদক্ষেপ যাতে ঋণদাতা ঋণগ্রহীতা এবং অন্যান্যদের উপর থেকে চাপ কমে এবং প্রতিশ্রুতি দিয়েছে আরো কিছু পদক্ষেপ করার।

রিজার্ভ ব্যাংক ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে অর্থনীতিতে যে তহবিল ঢুকিয়েছে নগদের পরিস্থিতি ঠিক রাখতে তা মোট জিডিপির ৩.২ শতাংশ। রিজার্ভ ব্যাংক অন্যান্য ব্যাঙ্কগুলিকে ঠেলে দিচ্ছে রেপো রেট কমিয়ে তা ৪.৪ শতাংশে নিয়ে গিয়েছে যা গত ১১ বছরে সর্বনিম্ন হয়েছে। প্রসঙ্গত লকডাউন চালু হওয়ায় সব রকম অর্থনৈতিক কার্যকলাপ স্তব্ধ হয়ে যায়।

গরিব ও প্রান্তিক মানুষ বিশেষত যারা দিন আনে দিন খায় তারা ভীষণভাবেই অসুবিধায় পড়েছেন। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে মার্চ মাসের শেষের দিকেই কেন্দ্র ১.৭ লক্ষ্য কোটি টাকার স্টিমুলাস প্যাকেজ ঘোষণা করে, যার মধ্যে ছিল গরিবদের জন্য বিনামূল্যে খাদ্য ও রান্নার গ্যাস এবং নগদ টাকা দেওয়ার ব্যবস্থা। সূত্রের খবর এবার সরকার খতিয়ে দেখে ঘোষণা করবে‌ দ্বিতীয় দফার ত্রাণ সামগ্রী এবং স্টিমুলাস প্যাকেজ খুব শীঘ্র।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।