মুম্বই: আর বিনিয়োগ করতে পারা যাবে না রিজার্ভ ব্যাংকের ৭.৭৫ শতাংশ বন্ডে। কারণ রিজার্ভ ব্যাংকের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, ৭.৭৫ শতাংশ সেভিংস (ট্যাক্সেবল) বন্ডস২০১৮ আর লগ্নি করা যাবেনা শুক্রবার ২০২০ সালের ২৯মে থেকে। দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এই মর্মে ২৭মে একটি বিবৃতি জারি করেছে । ‌ যাতে বলা হয়েছে ২৮মে‌ পর আর এই প্রকল্পে টাকা জমা করা যাবে না ।

এর ফলে বৃহস্পতিবার ব্যাংকিং সময়‌ পর্যন্ত এই প্রকল্পে টাকা জমা করার সুযোগ ছিল তা আর এখন নেই। এই বন্ডটি অনেক গ্রাহকের কাছে আকর্ষণীয় ছিল। তার কারণ এতে যা সুদের হার ছিল তা ব্যাংকের অন্যান্য স্থায়ী আমানত বা সমতুল্য নিরাপদ লগ্নি প্রকল্পের তুলনায় অনেক বেশি।

যেমন স্টেট ব্যাংক ২০২০ সালের ২৭মে থেকে এক বছরের স্থায়ী আমানতে দিচ্ছে ৫.১ শতাংশ এবং পাঁচ বছরের বেশি মেয়াদের স্থায়ী আমানত হলে দিচ্ছে ৫.৪ শতাংশ হারে সুদ। সেখানে রিজার্ভ ব্যাংকের এই বন্ড দিচ্ছিল অনেকটাই বেশি বার্ষিক ৭.৭৫ শতাংশ হারে সুদ।

রিজার্ভ ব্যাংকের এই দীর্ঘমেয়াদী বন্ডটিতে লগ্নি করলে অবশ্য তারপরে সাত বছর টাকা তুলতে পারা যেত না। সাধারণ লগ্নিকারীর প্রিম্যাচিউর টাকা তোলার কোনও সুযোগ ছিল না। বরিষ্ঠ নাগরিকদের এক্ষেত্রে কিছুটা রিলিফ দিলেও সেখানেও না তোলার সময়টা নেহাত কম নয়। যদি লগ্নিকারী ৬০-৭০ বছরের হন তাহলে তিনি লগ্নির ছয় বছরের মধ্যে টাকা তুলতে পারবেন না। যদি তার বয়স ৭০-৮০ বছরের মধ্যে হয় তাহলে তিনি পাঁচ বছরের মধ্যে টাকা তুলতে পারবেন না। আর যদি বয়স ৮০ বছরের বেশি হয় তখন তিনি চার বছরের মধ্যে টাকা তুলতে পারবেন না।

রিজার্ভ ব্যাংকের এই বন্ডে লগ্নির ক্ষেত্রে কোন উর্ধ্বসীমা ছিল না কিন্তু ন্যূনতম ১০০০ টাকা লগ্নি করা যেত। এই প্রকল্পে বিনিয়োগকারী দু’ভাবে সুদ পেতে পারতেন। এক হল একেবারে মেয়াদ শেষে আসলে সঙ্গে পুঞ্জিভূত সুদ একসঙ্গে পাওয়া যেত। অন্য ক্ষেত্রে সুদ পাওয়া যেত ছমাসের পুঞ্জিভূত সুদ পাওয়া যেত প্রতিবছর ৩১ জানুয়ারি এবং ৩১ জুলাই তারিখে। ২০১৮ সালের ১০ জানুয়ারি রিজার্ভ ব্যাংক এই বন্ড চালু করেছিল।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প