লাহোর: ভারতের এক নম্বর পেসার নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের পর এবার এক নম্বর ব্যাটসম্যানকে নিয়ে নিজের মতামত জানালেন আব্দুল রজ্জাক৷ বিরাট কোহলি ধারাবাহিক হলেও কিংবদন্তি সচিন তেন্ডুলকরের ক্ল্যাসের নয় বলে জানান প্রাক্তন পাক অল-রাউন্ডার৷

বুধবারই আইসিসি-র টেস্ট ব়্যাংকিংয়ে ব্যাটসম্যানদের মধ্যে শীর্ষস্থান পুনরুদ্ধার করেছেন কোহলি৷ অজি ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথকে সরিয়ে ফের এক নম্বর জায়গায় ফিরে এসেছেন ভারত অধিনায়ক৷ সদ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৭০তম সেঞ্চুরি করে সচিনের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন কোহলি৷ লিটল মাস্টারের রেকর্ড ভাঙার ক্ষেত্রেই কোহলিকেই এগিয়ে রেখেছেন প্রাক্তনদের অনেকেই৷

সদ্যসমাপ্ত ইডেনে পিঙ্ক বল টেস্টে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক ডে-নাইট টেস্টে ১৩৬ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলার সুবাদে কোহলি ৯২৮ রেটিং পয়েন্টে পৌঁছে যান৷ সেখানে আগের ব়্যাংকিং তালিকায় স্মিথের রেটিং পয়েন্ট ছিল ৯৩১৷ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সদ্য দুই টেস্টের সিরিজে ব্যাট হাতে বিশেষ কিছু করে দেখাতে না-পারায় অজি তারকাকে খোয়াতে হয় ৮ পয়েন্ট৷ ফলে এই মুহূর্তে স্মিথের সংগ্রহে রয়েছে ৯২৩ রেটিং পয়েন্ট৷ স্বাভাবিকভাবেই স্মিথকে ৫ পয়েন্টে পিছনে ফেলে এগিয়ে যান বিরাট৷

বিরাট সম্পর্কে প্রাক্তন অল-রাউন্ডার রজ্জাকের মন্তব্য, ‘বিরাট কোহলি রানের পর রান করে যাচ্ছে৷ ধারাবাহিকভাবে ও দারুণ সফল৷ কিন্তু আমি বিরাটকে সচিনের ক্ল্যাসে রাখতে পারব না৷ কারণ সচিন অন্য জাতের ক্রিকেটার৷’

শুধু তাই নয়, বর্তমানে ক্রিকেটের মান নিয়েও প্রশ্ন তোলেন রজ্জাক৷ প্রাক্তন এই পাক অল-রাউন্ডার বলেন, ‘১৯৯২ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত আমরাা যে বিশ্বমানের প্লেয়ারদের সঙ্গে খেলেছি, এখন তা নেই৷ টি-২০ ফর্ম্যাট ক্রিকেটে অনেক পরিবর্তন এনেছে৷ কিন্তু এখানে ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং কোনওটাতেই গভীরতা নেই৷ সব ক্ষেত্রেই এটা বেসিক৷

পাকিস্তানের হয়ে ৪৬টি টেস্ট, ২৬৫টি ওয়ান ডে এবং ৩২টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন। ২০০৩ বিশ্বকাপে রজ্জাককে মিড-অফে দাঁড় করিয়ে সচিনে বোলিং করছিলেন ওয়াসিম আক্রম। ঠিক ওই জায়গাতেই ক্যাচ তোলেন সচিন। কিন্তু রজ্জাক নিজের জায়গা ছেড়ে এগিয়ে আসায় সচিনের ক্যাচ ধরতে পারেননি। রজ্জাকের এই ক্যাচ মিস নিয়ে আক্রমের বক্তব্য তরুণদের কাছে অনুপ্রেরণা৷ হতাশ আক্রম চিৎকার করে রজ্জাককে বলেছিলেন, ‘তুই কার ক্যাচ ছাড়লি জানিস?’