টনটন: কাউন্টি চ্যাম্পিয়ন ডিভিশন ওয়ান ম্যাচে জ্বলে উঠলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। পাঁচদিনের ক্রিকেটে ভারতের স্পিন বিভাগের সেরা অস্ত্রের বিষাক্ত স্পিনে সমারসেটকে তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৬৯ রানে গুটিয়ে দিল নটিংহ্যামশায়ার। যদিও ম্যাচ বাঁচাতে পারেনি অশ্বিনের দল। সমারসেটের কাছে ১৩২ রানে হারল নটিংহ্যামশায়ার। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার আগে প্রথম ইনিংসেও ৯৩ রান খরচ করে ৩ উইকেট ঝুলিতে ভরে কাউন্টিতে আরও একবার নিজেকে প্রমাণ করলেন দক্ষিণী স্পিনার।

বিলেত থেকে বিশ্বকাপ ট্রফি ফিরিয়ে আনতে যখন মরিয়া লড়াই চালাচ্ছেন বিরাট। যুক্তরাজ্যের মাটিতে তখন খানিকটা নিঃশব্দে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের প্রস্তুতি চালাচ্ছেন জাতীয় দলের টেস্ট ক্রিকেটাররা। যাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পাঁচদিনের ক্রিকেটে কোহলির ডেপুটি আজিঙ্কা রাহানে, মিডল অর্ডারের স্তম্ভ চেতেশ্বর পূজারা, স্পিন বিভাগের সেরা অস্ত্র রবি অশ্বিন। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন এসেক্সের বিরুদ্ধে নটিংহ্যাম্পশায়ারের হয়ে কাউন্টি অভিষেকটা যদিও বিশেষ সুখের হয়নি অশ্বিনের জন্য। অভিষেক ম্যাচে দু’ইনিংস মিলিয়ে ১৬২ রান দিয়ে সংগ্রহ করেছিলেন মাতর ৩ উইকেট। ইনিংস হার স্বীকার করতে হয়েছিল নটিংহ্যামশায়ারকে।

তবে দ্বিতীয় ম্যাচে জাত চেনালেন রবি অশ্বিন। দু’বছর আগে ওরচেস্টারশায়ারের হয় কাউন্টি অভিষেক মরশুমে ৪ ম্যাচে ২০ উইকেট নিয়ে যেমনটা নামের প্রতি সুবিচার করেছিলেন এই ডানহাতি স্পিনার। দ্বিতীয় ম্যাচে বল হাতে দু’ইনিংসে ৮ উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতেও অবদান রাখেন অশ্বিন। প্রথম ইনিংসে ২৩ রানের পাশাপাশি দ্বিতীয় ইনিংসে অশ্বিনের ব্যাট থেকে আসে ৪১ রান। তবে ভারতীয় ক্রিকেটারের উল্লেখযোগ্য অবদান সত্ত্বেও ম্যাচ হারতে হয় নটিংহ্যামশায়ারকে। প্রথম ইনিংসে সমারসেটের ৩২৬ রানের জবাবে ২৪১ রানে গুটিয়ে যায় নটিংহ্যামশায়ার।

দ্বিতীয় ইনিংসে অশ্বিনের স্পিনে মাত্র ১৬৯ রান তুলতে সমর্থ হয় সমারসেট। জয়ের জন্য নটিংহ্যামশায়ারের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ২৫৫ রান। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় দ্বিতীয় ইনিংসে চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে পড়ে অশ্বিনের দল। ৪১ রান করে দলের সর্বোচ্চ স্কোরার হন অশ্বিনই। শেষমেষ ১২২ রানে শেষ হয়ে যায় নটিংহ্যামশায়ার ইনিংস। ৪টি করে উইকেট দখল করেন জ্যাক লিচ ও জেম ওভারটন। অশ্বিন সফল হলেও হ্যাম্পশায়ারের হয়ে ওয়ারউইকশায়ারের হয়ে ব্যাট হাতে ব্যর্থ টেস্ট ক্রিকেটে জাতীয় দলের সহ-অধিনায়ক আজিঙ্কা রাহানে। প্রথম ইনিংসে ৪ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৩ রানে আউট হন তিনি।