ফাইল ছবি

বর্ধমান: সব কিছু ঠিকঠাক চললে খুব শীঘ্রই রাজ্যে রেশন বণ্টন ব্যবস্থায় বদল আনতে চলেছে রাজ্য সরকার। বৃহস্পতিবার বর্ধমানের সংস্কৃতি লোকমঞ্চের অ্যানেক্স হলে সরকারি বৈঠক শেষে এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

বৃহস্পতিবারের ওই বৈঠকে হাজির ছিলেন কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার, রাজ্য খাদ্য দফরের সচিব মনোজ আগরওয়াল, জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া, জেলাশাসক বিজয় ভারতী, জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায়-সহ জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা। খাদ্যমন্ত্রী জানান, প্রতি সপ্তাহে আর রেশন দেওয়া হবে না। এবার চালু হচ্ছে মাসে একদিন রেশন দেওয়ার ব্যবস্থা। মাসে একদিন গ্রাহকরা রেশনের পণ্য সংগ্রহ করতে পারবেন। পুরো মাসের রেশন একদিনেই দেওয়া হবে।

মাসে একদিন রেশনে পণ্য দেওয়ার ব্যাপারে খুব শীঘ্রই রাজ্য সরকার বিজ্ঞপ্তি জারি করতে চলেছে বলেও জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এই ব্যবস্থার ফলে রেশন গ্রাহকরাই উপকৃত হবেন বলে দাবি খাদ্যমন্ত্রীর। এরই পাশাপাশি খাদ্যমন্ত্রী আরও জানিয়েছেন, প্রত্যেকটি রেশন দোকানেই ই-পস মেশিনের মাধ্যমেই পণ্য দেওয়া হবে। এ বছর গোটা রাজ্যে ৫২ লক্ষ মেট্রিক টন ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে বলে জানান জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এখনও পর্যন্ত সাড়ে ১২ লক্ষ মেট্রিক টন ধান কেনা হয়েছে।

খাদ্যমন্ত্রী আরও জানিয়েছেন, রাজ্যের যে রাইস মিলগুলি এবার সরকারকে চাল দেয়নি এবং যেসব রাইস মিলের বিরুদ্ধে তদন্ত এবং মামলা চলছে, আগামী এক মাসের মধ্যে সেই রাইসমিল গুলি সরকারকে প্রাপ্য চাল দিলে তাদের ১০ শতাংশ ছাড় দেওয়া হবে। খাদ্যমন্ত্রী জানান, বর্ধমানে এই ধরনের রাইস মিলের সংখ্যা প্রায় ৮টি। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের দাবি বাম আমলে প্রচুর ভুয়ো রেশন কার্ড তৈরি হয়েছিল। সেই কার্ড বাতিলের প্রক্রিয়া এখন ধারাবাহিক ভাবে চলছে। মূলত, রেশনের পণ্য নিয়ে দুর্নীতি এবং রেশনের পণ্য পাচার আটকাতেই ধারাবাহিকভাবে ওই কাজ চালানো হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।