মুম্বই: সুশান্ত সিং রাজপুতের ঘটনায় তাঁর প্রাক্তন বান্ধবী অঙ্কিতা লোখান্ডের সঙ্গে ইন্টারনেটে বাকযুদ্ধ চলছে গায়িকা শিবাণী দন্দেকারের। রিয়া গ্রেফতার হওয়ার পরে অঙ্কিতা বলেছিলেন ‘কর্মের ফল’। আর তারপরেই রিয়া চক্রবর্তীর বন্ধু শিবানী অঙ্কিতাকে আক্রমণ করেন। তিনি দাবি করেন অঙ্কিতা ‘২ সেকেন্ডের খ্যাতি পাওয়ার জন্য রিয়া চক্রবর্তীকে আক্রমণ করছেন’। এবার এই বাকযুদ্ধে অঙ্কিতার পাশে দাঁড়ালেন টেলিভিশন অভিনেত্রী রশমি দেসাই।

রশমি পরিষ্কার করে বলে দেন, অঙ্কিতার দু’ সেকেন্ডের খ্যাতির কোনো প্রয়োজন নেই। ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে রশমি লেখেন, “অঙ্কিতা লোখান্ডে তুমি একজন বড় তারকা। সমস্ত রকম অবতারে মানুষ তোমাকে ভালোবেসেছে। যাদের তোমার জীবনে কোনো গুরুত্ব নেই তাদের কাছে তোমার প্রমাণ করার কোনও দরকার নেই।”

সুশান্তের সঙ্গে অঙ্কিতার সম্পর্ক ছিল দীর্ঘদিনের। আর তাই সেই সম্পর্ক নিয়ে শিবানীকে মন্তব্য না করতে বলেছেন রশমি দেসাই। টেলি অভিনেত্রী মনে করিয়ে দেন, সুশান্ত যখন তারকা হয়ে ওঠেননি সেই সময় অঙ্কিতা তার সঙ্গে ছিলেন। তিনি বলছেন, “মানুষের মন খুব ছোট হয়ে গিয়েছে। তারা বুঝতেও পারেনা কখন তারা সীমা লংঘন করে ফেলছে। ‌ আমি ওদের যন্ত্রণা বুঝতে পারছি। কিন্তু তা বলে কিছু না জেনে অন্য কারোকে দোষারোপ করা ঠিক নয়। অঙ্কিতা যখন সুশান্তের সঙ্গে ছিল তখন ও কোনো তারকা ছিল না। তাই অঙ্কিতা ও সুশান্তের সম্পর্ক নিয়ে কোনো মন্তব্য করবেন না।”

রশমি আরো বলছেন, “এবার এই মামলাটি খুবই জটিল হচ্ছে। দয়াকরে বেশি কাটাছেঁড়া করবেন না এবং কারোর নামে বাজে কথা বলবেন না। ২ মিনিটের খ্যাতি অঙ্কিতার দরকার নেই। ও এমনিতেই একজন তারকা।”

সম্প্রতি শিবানী দাবি করেন অঙ্কিতা নিজেই কোনদিনও সুশান্তের সঙ্গে সম্পর্ক ঠিক করে রাখতে পারেননি। এখন ২ মিনিটের খ্যাতি পাওয়ার জন্য রিয়াকে আক্রমণ করছেন। এর উত্তরে অঙ্কিতা জানিয়েছেন, “কেউ কাউকে যদি ভালবাসে, এবং জানিয়ে যে মানুষটার মানসিক অসুস্থতা রয়েছে তাহলে সেই অবস্থায় কেউ ড্রাগ দিতে পারে? আপনি সেটা করবেন? আমি মনে করি , কেউ সেটা করবে না। তাহলে এটা কে কেন দায়িত্বহীনতা হিসেবে দেখা হচ্ছে না? ও বলেছে যে সুশান্তের পরিবারকে তার মানসিক অবস্থা সম্পর্কে জানিয়েছিল। কিন্তু ড্রাগ নেওয়ার কথা কি ও জানিয়েছিল? আমি নিশ্চিত ও জানায়নি। কারণ এই ব্যাপারটা ও নিজেও উপভোগ করত। আর তাই আমি মনে করি এটা কর্মের ফল।”

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।