মুম্বইঃ একদিকে করোনার জেরে এই মুহূর্তে উদ্বিগ্ন মহারাষ্ট্রের সাধারণ মানুষ। গোটা দেশের মধ্যে সে রাজ্যে ব্যাপকভাবে বেড়েছে সংক্রমণ। এই পরিস্থিতিতে মরাঠাভুমি থেকে উদ্ধার হল এক বিরল প্রজাতির সাপের। দুই মাথা যুক্ত রাসেল ভাইপার সাপ। ওই বিরল প্রজাতির সাপটি মহারাষ্ট্রের কল্যান গান্ধার রোড থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। কোথা থেকে সাপটি এল তা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

সাপটি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে দেখা গিয়েছে কৌতূহল। দুই মাথা যুক্ত সাপটিকে দেখে অনেকেই ছবি তোলার চেষ্টা করে। ভারতের বিষধর সাপগুলির মধ্যে অন্যতম বিষাক্ত সাপ হল এই রাসেল ভাইপার। পাশপাশি এই প্রজাতির সাপের কারণে একাধিক দুর্ঘটনা ঘটেছে বলেও জানা গিয়েছে।

স্থানীয় মানুষজন সংবাদমাধ্যমকে জানিয়ছেন যে, কল্যান এলাকার বাসিন্দা ডিম্পল সাহ প্রথম এই সাপটি দেখেছিলেন। আর সঙ্গে সঙ্গে বেশ কিছু সংস্থাকে জানিয়েছিলেন। দুটি উদ্ধারকারী দল ওই জায়গাতে এসে সেখান থেকে সাপটি উদ্ধার করেন। তবে ওই সাপটির কারণে কোনও অঘটন না ঘটায় স্বস্তি পেয়েছেন সকলেই।

ইতিমধ্যে একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে সাপের ছবি এবং ভিডিও। বন দফতরের এক কর্মী সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন। আর সেখান হেকে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয় যায় সেটির ছবি।

এই সাপের আক্রমনে প্রাথমিক ভাবে সুস্থ হয়ে গেলেও পরবর্তীতে ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা থাকে। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে কিভাবে ওই সাপটিকে উদ্ধার করা হয়েছে তাও দেখা গিয়েছে। শেয়ার করার সঙ্গে সঙ্গে হাজারের বেশি মানুষ ওই ভিডিওটি দেখেছেন। সাপটি উদ্ধার করার পরে ইতিমধ্যেই হাফকিন ইন্সটিউটে পাঠানো হয়েছে।

দুই মাথা যুক্ত সাপ বিরল হলেও অনেক সময়েই দেখতে পাওয়া যায়। আগেও এই ধরনের সাপ পাওয়া গিয়েছে ওডিশাতে।

প্রসঙ্গত গত কয়েকদিন আগে উত্তরাখন্ডে একটি সাপ উদ্ধার হয়। যা বিরল থেকে বিরলতর। নৈনিতাল জেলায় একটি বাড়িতে এই সাপটি দেখা গিয়েছে। বন দফতরের আধিকারিকেরা গিয়ে সেটিকে উদ্ধার করেন। তাঁরা জানিয়েছেন এটি বিরলতম রেড কোরাল কুকরি সাপ। নৈনিতালের বিন্দুখাট্টা এলাকার একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় একে।

বন দফতরের এই অফিসারেরা জানিয়েছে ১৯৩৬-এ শেষবার উত্তরপ্রদেশে এরকম একটি সাপ দেখা গিয়েছিল। তারপরই এটির বৈজ্ঞানিক নাম দেওয়া হয়। Oligodon kheriensis হল এর বৈজ্ঞানিক নাম। চলতি নামে কুকরি বলে ডাকা হয় একে। কারণ এদের দাঁত নাকি অনেকটা গোর্খাদের কুকরির মত বাঁকানো।

ডিভিশনাল ফরেস্ট অফিসার নীতিশ মনি ত্রিপাঠী বলেন, নৈনিতালের বাসিন্দা কবিন্দ্র কোরাঙ্গা বন দফতরে ফোন করে একটি সাপ উদ্ধার কররা কথা জানান। গৌলা ফরেস্ট রেঞ্জের টিমকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে গিয়ে দেখা যায় সাপটিকে একটি প্লাস্টিক প্যাকেটে রাখা হয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।