শঙ্কর দাস, বালুরঘাট : বিনামূল্যে জটিল অপারেশন করিয়ে আবারও প্রশংসার কেন্দ্রবিন্দুতে বালুরঘাটের সুপারস্পেশালিটি হাসপাতাল। তিন দিকে বাংলাদেশ সীমান্তে ঘেরা রাজ্যের প্রান্তিক জেলা দক্ষিণ দিনাজপুরের মানুষের চিকিৎসা পরিষেবায় একমাত্র ভরসা সরকারী এই হাসপাতাল।

আর এখানেই অপারেশনের মাধ্যমে এক ব্যক্তির কোমরে হিপ রিপ্লেসমেন্ট অপারেশন সম্ভব করলেন অস্থি বিভাগের চিকিৎসক অর্ণব সরকার। অপারেশনে শুধু সাফল্যই মিলেছে তা নয়। এটা সম্পূর্ণটাই হয়েছে বিনামূল্যে।

বালুরঘাটের বাসিন্দা সাতান্নর বছর বয়সী সপ্তর্ষি ঘটক। বছর দশেক আগে পড়ে গিয়ে তাঁর কোমরের হিপ জয়েন্টের ভেঙে যায়। সেই সময় ধার দেনা করে বাইরের এক হাসপাতাল থেকে অপারেশন করিয়েছিলেন। সেই সময় অপারেশনের মাধ্যমে কোমরের স্টিলের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি বসানো হয়েছিল। কয়েক বছর যেতে না যেতেই সেই যন্ত্রপাতিগুলিতে সমস্যা দেখা দেয়। পুনরায় কোমরের সমস্যায় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এমতাবস্থায় তিনি বালুরঘাট হাসপাতালে অস্থি বিশেষজ্ঞ ডাঃ অর্ণব সরকারে স্মরণাপন্ন হন। তাঁকে পরীক্ষা করে চিকিৎসক জানিয়ে দেন দ্রুত অপারেশনের মাধ্যমে কোমরের হিপ জয়েন্টের অত্যন্ত জটিল অপারেশন প্রয়োজন।

এমতাবস্থায় শনিবার বালুরঘাট সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালেই চিকিৎসক সপ্তর্ষি ঘটকের কোমরের টোটাল হিপ জয়েন্ট রিপ্লেসমেন্ট নামক জটিল অপারেশন করেন এবং তাতে সাফল্যও মিলেছে। বিনা খরচে সরকারী হাসপাতালে জটিল এই অপারেশনের সাফল্যে খুশি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রুগী ও তাঁদের পরিবারের লোকেরা। ইতিমধ্যেই জটিল এই অপারেশনের সাফল্যের কথা ছড়িয়ে পড়তেই সকলে সরকারী এই হাসপাতালের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন।

এব্যাপারে খোদ সপ্তর্ষি ঘটক জানিয়েছেন, বছর কয়েক আগে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে গিয়ে তাঁর কোমরের হিপ জয়েন্ট খুলে যায়। সেই সময় টাকা খরচ করে কোমরের অপারেশন করলেও পরবর্তীতে ফের সমস্যা শুরু হয় ও তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এই অবস্থায় বাইরে বেসরকারী হাসপাতালে যোগাযোগ করলে তাঁকে জানানো হয় যে জটিল এই অপারেশনের দুই লক্ষাধিক টাকা খরচ পড়বে। যা শুনে চরম দুশ্চিন্তায় পড়তে হয় তাঁকে। অগত্যা সরাসরি বালুরঘাট হাসপাতালে ডাঃ অর্ণব সরকারে কাছে যান ও শনিবার তাঁর সফল অপারেশন হয়েছে বলেও তিনি জানান।

দক্ষিণ দিনাজপুরের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডক্টর সুকুমার দিয়ে, জানিয়েছেন সপ্তর্ষি ঘটকের কোমরে টোটাল হিপ জয়েন্টে রিপ্লেসমেন্ট নামক এই অপারেশন অত্যন্ত জটিল ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। কারণ সপ্তর্ষি ঘটকের ক্রনিক কিডনি ও ফুসফুসেরও সমস্যা রয়েছে।ডাঃ অর্ণব সরকারের নেতৃত্বে অন্যান্য চিকিৎসক ও নার্স স্বাস্থ্যকর্মীদের মিলিত সাফল্য। বহুদিন পর দ্বিতীয়বার এই অপারেশন বালুরঘাট সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে হলো বলেও মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক জানিয়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।