কলকাতা : ফের মহাজাগতিক দৃশ্যের সাক্ষী থাকতে চলেছে । ক্রমশ পৃথিবীর কাছে এসে পড়া নিওওয়াইজ ধূমকেতুকে দেখা যাবে আজ ১৪ জুলাই থেকে। ধূমকেতুটির আসল নাম সি২০২০ এফ৩ হলেও, নাসার বিশেষ মহাকাশ নিরীক্ষণের জন্য টেলিস্কোপ ‘নিওওয়াইজ’ এই প্রথমবার সেটি ধরা দেওয়ায়, ধূমকেতুটিরও নাম রাখা হয় নিওওয়াইজ।

আগামী ১৪ জুলাই থেকে টানা ২০ দিন বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তের সঙ্গে ভারতেও দেখা যাবে নিওওয়াইজ ধূমকেতু। যত কাছে আসবে সেটি পৃথিবীর, ততই উজ্জ্বল হয়ে উঠবে তার লেজটি। শুধু সাদা ছাড়াও, কখনও কখনও রক্তিম আভাও হয়ে উঠতে পারে তার বর্ণ। বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, আগামী ২২শে জুলাই সবথেকে উজ্জ্বল ভাবে দেখা যাবে ধূমকেতুটি; কারণ সেদিন পৃথিবী থেকে মাত্র ১০হাজার কিলোমিটার দূরত্বে থাকবে সেটির অবস্থান।

মাত্র সাড়ে তিন মাস আগে, গত ২৭ মার্চ এই আগন্তুকের উপর প্রথম নজরে পড়ে নাসার উপগ্রহ ‘নিওওয়াইজ’-এর। তাই আবিষ্কারের পর ডাক-নামেই সে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আবিষ্কারের পর থেকে এত দিন নিওওয়াইজ-কে মোটামুটি উজ্জ্বল ভাবে দেখা যাচ্ছিল সূর্যোদয়ের ঘণ্টাখানেক আগে। উত্তর-পূর্বের আকাশে। তবে শহুরে আলো, দূষণ ও দিকচক্রবালের কাছে বর্ষার মেঘের আনাগোনার ফলে ধূমকেতুটিকে ততটা উজ্জ্বল ভাবে যদি না-ও দেখা যায় শহর এলাকায়, শহরতলি ও গ্রামাঞ্চলে তাকে বেশ উজ্জ্বল ভাবে দেখতে পাওয়ার সম্ভাবনা যথেষ্টই জোরালো। তার দু’টি লেজ দেখা যাবে।

ধূমকেতুটির ইতিমধ্যেই সূর্যকে প্রদক্ষিণ করা হয়ে গিয়েছে। এ বার সে ফিরে যাচ্ছে তার নিজের মুলুকে। সৌরমণ্ডলের শেষ প্রান্তে থাকা ওরট্‌ ক্লাউডে। নিজের মুলুকে ফেরার সেই পথেই আগামী ২২ জুলাই নিওওয়াইজ সবচেয়ে কাছে আসবে পৃথিবীর। সে দিন আমাদের থেকে নিওওয়াইজের দূরত্ব হবে মাত্র ১০ কোটি ৩০ লক্ষ কিলোমিটার। এর আগেও এমন আগন্তুকরা এসেছে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে। তাদের কেউ আমাদের নজরে পড়েছে, কেউ পড়েনি। কাউকে দেখা গিয়েছে শুধু টেলিস্কোপেই। আর কেউ বা দৃশ্যমান হয়েছে খালি চোখেও। ১৯৬৫ সালে দেখা গিয়েছিল ‘ইকেয়া সাকি’ ধূমকেতুটিকে। টেলিস্কোপে। তার পর খালি চোখে দেখা গিয়েছিল ‘হ্যালির ধূমকেতু’কে, ১৯৮৬-তে। ১০ বছর পর ১৯৯৬-তে টেলিস্কোপের নজরে ধরা দিয়েছিল ‘হায়াকাতুকে’। তার ১১ বছর পর ১৯৯৭ সালে খালি চোখে দেখা গিয়েছিল ‘হেল বপ’ ধূমকেতু। আর সাত বছর আগে টেলিস্কোপে ধরা দিয়েছিল ধূমকেতু ‘প্যান স্টার’। তবে ২০১৩ সালে ভারতের সব জায়গা থেকে উজ্জ্বল ভাবে দেখা যায়নি প্যান স্টার-কে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ