শংকর দাস, বালুরঘাটঃ গণধর্ষণ ও নৃশংস ভাবে খুনের ঘটনার ১১ দিনের মাথায় চার্জশিট দাখিল করল পুলিশ। শুক্রবার বালুরঘাট আদালতে চার্জশিট জমা দেন ঘটনার তদন্তকারী অফিসার ডিএসপি বিনোদ ছেত্রী। গত ৫ জানুয়ারী কুমারগঞ্জের বেলখোর এলাকায় এক কিশোরীকে ডেকে নিয়ে গিয়ে তিন বন্ধু মিলে প্রথমে গণধর্ষণ ও পরে গলার নলী কেটে নৃশংস ভাবে খুন। সেই সঙ্গে প্রমাণ লোপাটের চেষ্টায় পেট্রোল ঢেলে মৃতদেহে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরদিন সকালে অগ্নিদগ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। শুধু তাইই নয় ঘটনার ২৪ ঘন্টার মধ্যে অভিযুক্ত তিন জনকেই গ্রেফতারও করতে সফল হয়।

কুমারগঞ্জের এই গণধর্ষণ ও নৃশংস খুনের ঘটনায় শুরু হয় প্রতিবাদের ঝড়। দোষীদের ফাঁসির দাবীতে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মোমবাতি মিছিল ও বিক্ষোভ প্রদর্শিত হয়। এলাকার সাংসদ ডঃ সুকান্ত মজুমদার ও বিজেপির মহিলা মোর্চার রাজ্য সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় মৃতার বাড়িতে গিয়ে দ্রুত চার্জশিট পেশ ও দোষীদের ফাঁসির দাবিও জানান। গত রবিবার জাতীয় তপশিলি জাতি কমিশনের সদস্য ডঃ যোগেন্দ্র পাশোয়ান দক্ষিণ দিনাজপুরের পঞ্চগ্রামে গিয়ে মৃতার পরিবারের সাথে দেখা করেন। সেদিন তিনি পুলিশ সুপারকে নির্দেশের পাশাপাশি হুশিয়ারি দিয়েছিলেন যে সাতদিনের মধ্যে চার্জশিট জমা না দিলে ডিজি ও ডিএম এসপি’কে দিল্লিতে তলব করা হবে।

ধৃত মহাবুর মিয়া গৌতম বর্মন ও পংকজ বর্মণকে পুলিশ নিজেদের হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদের পর ১৫ জানুয়ারী ফের আদালতে হাজির করায়। জেল হেফাজত থেকে শুক্রবার তিনজনকে আবারও আদালতে হাজির করানো হয়। বিচারক তাদের ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার পাশাপাশি আগামী ৩১ জানুয়ারী থেকেই মামলার শুনানির নির্দেশ দিয়েছেন। ১১ দিনের মধ্যে ঘটনার তদন্ত শেষে এদিন পুলিশ চার্জশিটও এদিন পেশ করেছে আদালতে। আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে।

মৃতের পরিবারের তরফে যে অভিযোগগুলি তুলে ছিলেন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সেগুলির সবই সত্যি প্রমাণিত হওয়ায় চার্জশিটে নতুন করে বেশকিছু ধারা যুক্ত হয়েছে। তদন্তে নেমে প্রথমে তিনজনের বিরুদ্ধে গণধর্ষণ খুন এবং প্রমাণ লোপাটের অভিযোগ দায়ের করলেও জাতীয় তপশিলি জাতি কমিশনের হস্তক্ষেপে এই মামলায় এসসিএসটি ধারা যুক্ত করতে বাধ্য হয় পুলিশ। এদিন অভিযুক্তদের পক্ষে ডিএলএস নিযুক্ত আইনজীবী তথাগত বোস জামিনের আবেদন করলে স্পেশাল কোর্টের বিচারক দুলাল কর তা নাকোচ করে দিয়েছেন। আদালতের সরকারি আইনজীবী ঋতব্রত চক্রবর্ত্তী জানিয়েছেন, ঘটনার তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ের পরই রেকর্ড সময়ে চার্জশিট জমা করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত তিনজনের বিরুদ্ধেই ১২০বি, ৩৭৬ডি, ৩০২, ২০১, ৩৪আইপিসি ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ।