মুম্বই: অবশেষে মুক্তি পেল রানু মণ্ডলের গাওয়া সেই গান। রানুর গাওয়া তেরি মেরি কাহানি-র দুই লাইন ইন্টারনেটে ভাইরাল হয় মুহূর্তে। বহু প্রতীক্ষার পরে এবার হ্যাপি হার্ডি অ্যান্ড হীর সেই গানের সম্পূর্ণ অংশ প্রকাশ পেল ইউটিউবে।

এই গানের ভিডিওয় শুধু ছবির দৃশ্যই নয়। রেকর্ডিং স্টুডিওতে রানু গান গাইছেন সেই দৃশ্যও রয়েছে। এর মধ্যেই গানের ভিডিওটি ভিউ প্রায় ১০ লক্ষের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে।

রানাঘাটের রেল স্টেশনে এক পেয়ার কা নগমা হ্যায় গানটি গেয়ে রাতারাতি ভাইরাল হয়েছিলেন রানু মণ্ডল। তার পরেই মুম্বই পাড়ি দেন তিনি। সেখানেই হিমেশের নজরে পড়ে যান রানাঘাটের রানুদি। প্রথম বার তাঁর গান শুনেই হিমেশ তাঁর ছবিতে প্লেব্যাক করার প্রস্তাব দেন। যেমন কথা, তেমন কাজ। হিমেশের আসন্ন ছবি হ্যাপি হার্ডি অ্যান্ড হীর ছবিতে তিনটি প্লেব্যাক করেছেন তিনি। তার মধ্যেই তেরি মেরি গানটির দুই লাইন মুহূর্তে ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সেই দুই লাইন গান শুনেই রানুর ভক্তরা মরিয়া হয়েছিলেন, কবে শুনতে পাবেন ইন্টারনেট সেনসেশনের গান। এই ছবিতেই আশিকি মে তেরি ও আদত- এই দুটি গান গেয়েছেন রানু। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, ছবির ট্রেলারের আগেই সব কটি গান মুক্তি পাবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।