কলকাতা: ফের বিভ্রাটে বাংলা সিরিয়াল। টালিগঞ্জে দুই সিরিয়ালের শ্যুটিং বন্ধ হয়ে গেল শনিবার থেকে। এর মধ্যে রয়েছে জনপ্রিয় সিরিয়াল রানি রাসমনি। জানা গিয়েছে, পারিশ্রমিক বাকি নেই। তবে বাকি আছে টিডিএস।
শুধু রানি রাসমনি নয়, বন্ধ হয়ে গিয়েছে দেবী চৌধুরানী সিরিয়ালের শ্যুটিংও। এটাই প্রথম নয়। এর আগেও এইভাবে সিরিয়ালের শ্যুটিং বন্ধ হয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে আশ্বাস দেওয়ায় ফের চালু হয়েছে শ্যুটিং।

টেলিপাড়ার একাধিক সূত্রের খবর অনুযায়ী, পারিশ্রমিক বকেয়া থাকার অভিযোগেই, বিগত দু’মাসের মধ্যে সুব্রত রায় প্রোডাকশন্সের প্রায় সব ধারাবাহিকই সংশ্লিষ্ট চ্যানেলগুলির হস্তক্ষেপে হস্তান্তরিত হয়ে গিয়েছে জ্যোতি প্রোডাকশন্সের কাছে। কিন্তু হস্তান্তর হলেও বিগত আর্থিক বর্ষের জন্য কলাকুশলীদের টিডিএস সার্টিফিকেট দেওয়ার দায়িত্ব পূর্বতন প্রযোজক অর্থাৎ সুব্রত রায়ের।

দীর্ঘদিন ফেলে রাখার পরে শুক্রবার অর্থাৎ ২৩ অগস্ট টিডিএস সার্টিফিকেট দেওয়ার কথা ছিল সংস্থার। তা না পেয়েই কিছুদিন আগেই ওই ধারাবাহিকের ইউনিটে বিক্ষোভ দেখা যায়। ব্যাহত হয় শ্যুটিং।

শোনা যাচ্ছে টলিপাড়ায় চ্যানেল কর্তৃপক্ষের একে অপরের উপর দোষ চাপানোর খেলা চলছে। কিছুদিন আগে প্রযোজক রানা সরকার পাঁচটি ধারাবাহিক ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছেন, পারিশ্রমিক সংক্রান্ত সমস্যার কারণেই। সুব্রত ও একই পথে হাঁটছেন? সেই আশঙ্কাই তৈরি হয়েছে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে শ্যুটিং সেটে উপস্থিত হন এই সিরিয়ালের কলা কূশলিরা। কিন্তু টেকনিশিয়ানদের বকেয়া টাকা না মেটায় তাঁরা বন্ধ করে দেন সরঞ্জাম সরবারাহ। বেশ কয়েকমাস ধরেই টাকা বকেয়া ছিল। সম্প্রতিই আর্টিস্ট ও টেকনিশিয়ানদের বকেয়া টাকা মেটানো হয়। কিন্তু সাপ্লায়াররা কিছুই পাননি। তাঁদের জানানো হয়েছিল ৩০ অগাস্টের মধ্যে মিটিয়ে দেওয়া হবে প্রাপ্য টাকা।

সেই মত চেক হাতে পাওয়ার পরও টাকা ঢোকেনি। চেক বাউন্স হওয়ার পরই আবারও কাঠ গোড়ায় দাঁড়াতে হয় সুব্রত রায়কে। প্রযোজকের বিরুদ্ধে সরব হন সরঞ্জাম সরবরাহকারীরা। স্পষ্টই জানিয়ে দেন তাঁদের পক্ষে আর সরঞ্জাম সরবরাহ করা সম্ভব নয়। ফলে বিপদের মুখে পড়তে হয় ধারাবাহিকের শ্যুটিং-কে।