মুম্বইঃ দীর্ঘ দিন বাড়িতে বন্দি থাকার ফলে আমাদের সবারই মন চায় একটু বেড়িয়ে আসার। তার তার উপর এই লকডাউন, কোয়ারেন্টিন সব মিলিয়েই নাজেহাল অবস্থা। এবার করোনা মুক্ত হয়েই ছুটি কাটাতে বেড়িয়ে পড়ল রনবীর – আলিয়া। এতদিন বাড়িতে কোয়ারেন্টিনে থাকার পর দুজনেরই এই বিচ ভ্যাকেসনটা প্রয়োজন ছিল। মুম্বই এয়ারপোর্টে পাপারৎজির ক্যামেরায় ধরা পড়ল রনবীর আলিয়ার স্টাইলিস ভ্যাকেসন লক। প্রসঙ্গত, গত মাসে রনবীরের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে এবং এই মাসের শুরুতে আলিয়ার কোভিড ধরা পড়ে। তারপর থেকে তারা দুজনই ছিল হোম কোয়ারেন্টিনে।

আলিয়ার রনবীরের গ্রীষ্মের বিচ ভ্যাকেসন লুক ছিল একেবারে মাচিং। মাস্টার্ড কালারের ক্রপ টপ, উপরে সাদা হাতকাটা জ্যাকেট এবং সাদা প্যান্টে আলিয়ার লুক একেবারেই স্টানিং। এদিকে সাদা টি শার্ট এবং ব্লু জিন্স সঙ্গে রনবীরের লুক বরাবরের মতই তাকে করে তুলেছে স্টিইলিস এবং ড্যাসিং। সঙ্গে দুজনের কাল মাস্ক এবং কাল সান গ্লাস তাদের করোনাকালের ভ্যাকেসন লুক কে করেছে সম্পূর্ণ।

আলিয়া রনবীর অনেক দিন থেকেই সম্পর্কে রয়েছেন। দুজনের বাড়িতেও রয়েছে যাতায়াত। জানা গেছে গত বছর আলিয়া রনবীরের গাঁট ছড়া বাঁধার কথা ছিল। কিন্তু করোনা মহামারির কারনে শুটিং শিডিউলের মত তাদের বিয়ের শিডিউলেও আনতে হয়েছে পরিবর্তন।

আলিয়া রনবীরকে শিগ্রই দেখা যাবে ‘ব্রাহ্মাস্ত্রা’ ছবিটিতে। এই যুগল প্রথমবার বড় পর্দায় জুটি বাঁধতে চলেছেন। ছবির পরিচালক অয়ন মুখার্জী। পরিচালক হওয়ার পাশাপাশি আলিয়া রনবীরের কাছের বন্ধুও অয়ন। এই ছবিতে অমিতাভ বচ্চন, নাগার্জুনা আক্কিনেনি, ডিম্পল কাবাডিয়া, মৌনী রয় কেও দেখা যাবে।

এছাড়াও রনবীরকে দেখা যাবে সন্দীপ রেড্ডি ভাঙ্গার পরিচালনায় ‘অ্যানিম্যাল’ ছবিতে। ছবিতে রয়েছেন পরিণীতি চোপড়া, অনিল কাপুর, ববি দেওাল। লভ রঞ্জনের পরের ছবিতে রনবীর এবং শ্রাদ্ধা কাপুর রয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে ছবির নাম এখনও নির্ধারণ হয়নি।

এবছর আলিয়া তার প্রডাকশন হাউস ‘ইটারনাল সানসাইন প্রডাকশন’ লঞ্চ করেছেন। সঞ্জয় লীলা বনসালির পরিচালনায় আলিয়ার ‘গাঙ্গুবাই কাঠিয়াওয়াডি’র টিজার ইতিমধ্যে মুক্তি পেয়েছে। এছাড়াও তাখত, RRR ছবি গুলিও রয়েছে আলিয়ার ঝিলিতে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.