নয়াদিল্লি: গত পাঁচ বছরে একের পর এক হার দেখেছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল। হাত ছাড়া হয়ে গিয়েছে অনেক রাজ্য। গত এক বছরে কর্ণাটক সহ দেশের তিন রাজ্যে কংগ্রেসের সরকার গঠিত হলেও সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে প্রবল ভরাডুবি হয়েছে কংগ্রেসের।

এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধীকে বিশেষ পরামর্শ দিলেন মোদী সরকারের মন্ত্রী তথা ভারতের রিপাব্লিকান পার্টির সভাপতি রামদাস আটাওয়ালে। তিনি মনে করেন যে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য রাহুল গান্ধীকে আরও শক্তিশালী হতে হবে। আর এই শক্তিশালী হওয়ার জন্য অবিলম্বে বিয়ে করা প্রয়োজন বলে দাবি করেছেন রামদাস।

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে রাহুল গান্ধীর কাঁধেই ছিল কংগ্রেসের দায়িত্ব। সেই নির্বাচনে বিপুল জনাদেশ নিয়ে কন্দ্রে সরকার গঠন করে এনডিএ। প্রথম মোদী সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র বিরোধিতা করেছেন রাহুল। গত কয়েক বছরে সেই বিরোধিতার বেগ যথেষ্টই বেশি হয়েছিল। বিশেষ করে রাফায়েল নিয়ে রাহুলের আক্রমণ জোরাল করেছিল দেশের সকল অবিজেওপি রাজনৈতিক দলের নেতাদের।

যদিও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনেও ফের কেন্দ্রে ফুটেছে পদ্ম। গতবারের থেকেই এবারে আসন সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে এনডিএ জোটের। একই সঙ্গে একার ক্ষমতায় ৩০০ আসন পার করতে সক্ষম হয়েছে বিজেপি।

নিজের গড় আমেঠি থেকেও জিততে পারেননি তিনি। যদিও দক্ষিণের রাজ্য কেরলের ওয়ানাড থেকে তিনি জয় হাসিল করতে পেরেছেন। এই অবস্থায় দলের সর্বভারতীয় সভাপতির দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চেয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। যদিও এই মুহূর্তে দলের অন্য কোনও প্রবীণ নেতা সেই দায়িত্ব নিতে নারাজ। বেনুগোপাল রাও বা একে অ্যান্টনির মতো নেতারাও ফিরিয়ে দিয়েছেন দেশের সর্বাপেক্ষা প্রাচীন রাজনৈতিক দলের সভাপতি হওয়ার প্রস্তাব।

এই পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়তেই কংগ্রেস সভাপতিকে বিয়ে করার পরামর্শ দিয়েছেন মোদীর মন্ত্রী রামদাস। সেই পরামর্শ কী মানবেন রাহুল গান্ধী? এই প্রশ্নের জবাব এখনও আসেনি। আসবে বলেও মনে হয় না। কিন্তু এই পরামর্শ মানলেই কী শক্তিশালী হতে পারবে কংগ্রেস? প্রশ্ন থাকছেই।