নয়াদিল্লি: ঐতিহাসিক মুহূর্তের জন্য প্রহর গুণছে অযোধ্যা। আর তার ঠিক কয়েক ঘণ্টা আগেই সংবিধানের সঙ্গে রামের এক যোগসূত্র তুলে আনলেন আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

বুধবার অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমি পূজন হবে। আর তার আগে একটি ট্যুইট করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। সেখানে রয়েছে সংবিধানের একটি পাতার ছবি। আর তাতে আঁকা শ্রীরাম। রাম, লক্ষণ ও সীতা মাতার একটি ছবি রয়েছে ওই পাতায়। নীচে লেখা আছে Part III- Fundamental Rights.

এই ছবি পোস্ট করে আইনমন্ত্রী লিখেছেন, এই ছবি আসল সংবিধানের একটি পাতার। আর সেখানেই আঁকা আছে এই ছবি। যে পাতার ছবি এটি, সেখান থেকেই শুরু হয়েছে সংবিধানের Fundamental Right বা মৌলিক অধিকার সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা।

ভূমিপূজার আগে তাঁর এই ছবি অবশ্যই তাৎপর্যপূর্ণ। আইনমন্ত্রী সংবিধানের সঙ্গে ভগবান শ্রীরামের সংযোগের কথা উল্লেখ করতে চেয়েছেন।

এদিন বেলা সাড়ে বারোটা নাগাদ অযোধ্যায় বহু প্রতীক্ষিত রামমন্দিরের ভূমিপুজোর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সূত্রের খবর, গোটা অনুষ্ঠান পর্ব পরিচালনা করবেন রামজন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের মহাসচিব চম্পত রায়। জানা গিয়েছে, অনুষ্ঠানে আগত প্রধানমন্ত্রী-সহ বিশেষ অতিথিদের স্বাগত জানাবেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিতন্যনাথ। তবে মঞ্চে প্রধানমন্ত্রী মোদী ছাড়াও থাকবেন মাত্র পাঁচজন। ঐতিহাসিক এই ভূমি পুজো কারণে গোটা অযোধ্যাকে সুন্দর করে সাজিয়ে তোলা হয়েছে।

অনুষ্ঠান শুরু হবে ঠিক সকাল ১০ টা থেকে। যদিও সূচি অনুযায়ী ১১টা ৪০ নাগাদ অযোধ্যা পৌঁছবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

অযোধ্যায় এসে প্রথম হনুমানগড়ি মন্দিরে যাবেন প্রধানমন্ত্রী। বুধবারের সফরে সাকেত কলেজে থেকে প্রথমে হনুমানগড়িতে পৌঁছবেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ১০ মিনিট থাকার কথা প্রধানমন্ত্রীর। বেলা ১২টায় রাম জন্মভূমির অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছবেন প্রধানমন্ত্রী। বৃক্ষরোপণ করার কথা রয়েছে তাঁর।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও