শঙ্কর দাস, বালুরঘাট: রাখি বেঁধে অসুস্থদের মানসিকভাবে সুস্থ করে তোলার উদ্যোগ নিল সরকারি হাসপাতালের চিকিত্সকরা। বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে শনিবার রাখি উত্সবকে এই ভাবেই চিকিত্সার কাজে ব্যবহার করলেন হাসপাতালের চিকিত্সক ও নার্সরা। এদিন সকালে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে গিয়ে হাসপাতালের চিকিত্সকরা সেখানে ভরতি অসুস্থদের হাতে রাখির সুতো বেঁধে দেন। কটু স্বাদের ওষুধ বা ইনজেকশনের বদলে হাতে রাখি ও লাড্ডুর প্যাকেট দেখে রোগীরা প্রথমে একটু অবাকই হয়ে গিয়েছিলেন।  চিকিত্সক ও নার্সরা এদিন প্রত্যেককে রাখি পরিয়ে দিয়ে তাঁরা নিজে হাতেই লাড্ডু খাইয়ে দিয়েছেন রোগীদের।

সার্জিক্যাল বিভাগে ভরতি চকভৃগু এলাকার যুবক রামকৃষ্ণ দাস জানিয়েছেন, শুক্রবার রাত থেকেই প্রচন্ড পেটে ব্যথা নিয়ে তিনি হাসপাতালে ভরতি আছেন। সকালে তিনি মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পরেছিলেন। কারণ, অন্যান্যবার বোনেদের কাছ থেকে রাখি পড়তেন তিনি। এবার অসুস্থতার কারণে হাসপাতালে ভরতি হওয়ায় তা সম্ভব হচ্ছিল না। বারবার মনে পড়ছিল গত বছরগুলোর স্মৃতি৷ কিন্তু বেলা দশটা নাগাদ তাঁর সেই ধারনাটাই পালটে গিয়েছে। চিকিত্সক ও নার্স দিদিমনিরা ওয়ার্ডে এসে তাঁর হাতে রাখি বেঁধে দিয়েছেন। তিনি আরও জানান যে এবারের রাখি উত্সব তাঁর কাছে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। হাসপাতালে ভরতি থেকেও যে উত্সবে সামিল হওয়া যায় তা আগে কখনও ভাবনাতেই আসেনি তাঁর।

হাসপাতালের চিকিত্সক ডা: অচিন্ত্য বিশ্বাস জানিয়েছেন যে রাখি উত্সব উপলক্ষে এই দিনটিকে সংস্কৃতি দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে। এই সংস্কৃতি দিবসে অসুস্থ রোগীদেরও সামিল করে নিতেই তাঁদের এই উদ্যোগ। শুধু রাখি বেঁধে দেওয়াই নয় সুগারের রোগী বাদে প্রত্যেককে লাড্ডুও খাওয়ানো হয়েছে। এর মূল লক্ষ্যই হল উত্সবের আনন্দে সামিল করিয়ে তাদের মানসিক ভাবে সুস্থ করে তোলা।