মুম্বই: ভুয়ো কাগজপত্র দাখিল। বারবার সমন পাওয়া সত্ত্বেও আদালতে হাজিরা না দেওয়া। সব মিলিয়ে আইনে রোষানলে অভিনেতা রাজপাল যাদব। আট বছর আগে, দাখিল হওয়া প্রতারণার মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলেন অভিনেতা রাজপাল যাদব। তবে তিনি একা নন! একই সঙ্গে সাব্যস্ত হয়েছেন তাঁর স্ত্রী রাধা।

২০১০ সালে ‘আতা পাতা লাপাতা’ ছবিটির পরিচালনার জন্য, এমজি আগরওয়ালের থেকে ৫ কোটি টাকা নেন রাজপাল ও তাঁর স্ত্রী। কিন্তু ছবি মুক্তি পাওয়ার পর, সে টাকা ফেরত পাননি মিস্টার আগরওয়াল। নিরুপায় হয়ে আইনের সাহায্য নেন তিনি।

একাধিকবার আদালতের সমন পাঠানো হয়েছিল অভিনেতাকে। কিন্তু তার উত্তরও দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি রাজপাল। তাই অবশেষে শনিবার দিল্লির কর্করডুমা আদালত দোষী সাব্যস্ত করেন রাজপাল ও তাঁর স্ত্রীকে। এপ্রিল মাসের ২৩ তারিখ সাজা ঘোষণা করা হবে।

উত্তরপ্রদেশের শাহজাহানপুরে জন্ম ৪৭ বছরের অভিনেতার। লখনউ থেকে অভিনয় শিখে তিনি পাড়ি দেন দিল্লি। ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা থেকে অভিনয়ের কোর্স কমপ্লিট করে ১৯৯৭ সালে মুম্বই আসেন। ওয়াচম্যান, পিওন, পোর্টারের মতো চরিত্র দিয়ে বলিউডের যাত্রা শুরু করেন। পরিচিতি পান রামগোপাল ভার্মার ‘জঙ্গল’ ছবির পর থেকে। তারপর থেকেই বলিউডের ছবিতে চরিত্রাভিনেতা হিসেবে অপরিহার্য হয়ে ওঠেন রাজপাল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.