নয়াদিল্লি : পাকিস্তান এবার কাশ্মীর নিয়ে বাড়াবাড়ি করছে৷ স্পষ্ট এই ভাষাতেই ইসলামাবাদকে হুঁশিয়ারি কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের৷ তাঁর মন্তব্য, কাশ্মীর ইস্যুতে কাঁদুনি গেয়ে বিশ্বের দরজা ধাক্কিয়ে কোনও ফল পাবে না পাকিস্তান৷ ভারত যদি পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসে, তবে আলোচনা হবে শুধুই পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে, আর কোনও বিষয়ে নয়৷

রাজনাথ এদিন জানিয়ে দিয়েছেন, কাশ্মীর নিয়ে কোনও আলোচনা পাকিস্তানের সঙ্গে করবে না ভারত৷ ইসলামাবাদের উচিত পাক অধিকৃত কাশ্মীরে মন দেওয়া৷ তবেই কোনও আলোচনার রাস্তা খুলতে পারে৷ এই ইস্যুতে ক্রমাগত ভারতকে দোষ দিয়েও কোনও লাভ নেই৷ কারণ ভারত কোনও অনৈতিক কাজ করেনি৷ কাশ্মীর নিয়ে যে সিদ্ধান্ত কেন্দ্র নিয়েছে, তা পুরোপুরি ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার৷

আরও পড়ুন : জওহরলালের নাম সরিয়ে দেওয়া হোক মোদীর নাম, দাবি বিজেপি সাংসদের

দিন কয়েক আগেই পাকিস্তান ভারতকে দোষারোপ করে বলেছিল, কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর বালাকোট এয়ার স্ট্রাইকের মত বড় হামলা করার পরিকল্পনা করছে ভারত৷ তার মানে এটাই দাঁড়ায় পাকিস্তান এখনও বালাকোট এয়ারস্ট্রাইককে ভয় পায় ও যাকে তারা স্বীকৃতি দিতে চাইছিল না, আজ বাধ্য হয়ে সেটাকে স্বীকৃতি দিতে হচ্ছে৷

এর আগে শুক্রবার প্রতিবেশী রাষ্ট্রের একের পর এক পদক্ষেপ নিয়ে বড়সড় হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী৷ তিনি সাফ জানিয়ে ছিলেন, পরিস্থিতি বিচার করে প্রয়োজন হলে ভারত পরমাণু অস্ত্রনীতিতে বড়সড় বদল আনতে পারে৷ এদিকে কাশ্মীর নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পরে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেছে নয়াদিল্লি৷ কাশ্মীর আমাদের অন্তর্বর্তী বিষয়। বৈঠক শেষে পরিষ্কার জানিয়ে দেন রাষ্ট্রসংঘে ভারতের প্রতিনিধি সৈয়দ আকবরুদ্দিন।

আরও পড়ুন : ‘ভারতের সঙ্গে কথা বলে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করুন’, পাকিস্তানকে আমেরিকার উপদেশ

কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের বিরোধিতা করে চিন ও পাকিস্তানের যৌথ চিঠি গিয়েছিল রাষ্ট্রসংঘে৷ দুই দেশেরই দাবি কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার নিয়ে ভারতের ভূমিকা অনৈতিক৷ সেই বিষয়ে আলোচনা করুক রাষ্ট্রসংঘ৷ দাবি মেনে ১৯৬৫ সালের পর এই প্রথম রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ৷

স্থানীয় সময় সকাল ১০টা অর্থাৎ ভারতীয় সময় সন্ধ্যে সাড়ে সাতটায় এই বৈঠক শুরু হয়৷ উল্লেখ্য, ১৯৬৪ সালে ১৬ই জানুয়ারি পাকিস্তানের অনুরোধে প্রথমবার কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা হয়৷ তারপর এই আলোচনা হল শুক্রবার৷