স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: চলছে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন৷ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে দ্বিতীয় দফা৷ আর এই দ্বিতীয় দফার দিনেই রাজ্যে এলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং৷ দক্ষিণ মালদহের প্রার্থীর সমর্থনে নির্বাচনী সভায় রাজ্যের শাসকদলকে এককহাত নিলেন৷ তিনি স্পষ্ট জানালেন, ‘আর বন্দুকতন্ত্র নয়, লোকতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করব আমরা৷’

বৃহস্পতিবার দুপুরে মালদহ শহরের জেলা ক্রীড়া সংস্থার মাঠে দক্ষিণ মালদহের বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরির সমর্থনে জনসভার আয়োজন করা হয়। এখানেই প্রধান বক্তা রাজনাথ সিং ছাড়াও হাজির ছিলেন এরাজ্যের দলের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। ছিলেন রাজ্য সভার সাংসদ রুপা গঙ্গোপাধ্যায়, জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র-‌সহ অন্যরা। দক্ষিণ মালদহের নির্বাচনী সভা শেষ করে উত্তর মালদহে বিজেপি প্রার্থী খগেন মূর্মু’র সমর্থনে চাঁচলেও একটি প্রচারসভা করেন তিনি৷

প্রচার মঞ্চ থেকেই তিনি বলেন, ‘‌ভারত এখন কমজোর আর নয়। কাশ্মীরের জঙ্গি হামলার ঘটনায় আমাদের প্রধানমন্ত্রী দ্রুত সিদ্ধান্ত নেন। পাকিস্তানের মাটিতে গিয়ে আমাদের সেনারা আতঙ্কবাদীদের মেরে এসেছে। কতজনকে মেরেছে সেখানে দাঁড়িয়ে কী গোনা সম্ভব!‌ তৃণমূল আর কংগ্রেস জানতে চাইছে মৃতের সংখ্যাটা কত। এক, দুই, তিনি, চার, না পাঁচ। ২-‌৪ জন হলে বলা যায়। আজব ব্যাপার সব। এটা কেমন চর্চা। তামাশা বানিয়ে ফেলেছে এরা।’‌

রাজ্যে এখন গুন্ডাগিরি, বন্দুকের রাজত্ব নিয়ে তৃণমূলকে আক্রমণ করে রাজনাথ এদিন বলেন,‘‌শুনলাম এ জেলার মানুষ খুব ভয়ে ভয়ে আছেন। নির্বাচনে গন্ডগোল চলছে। আমি বলে যাচ্ছি, আপনারা লিখে নিন, এরাজ্যে গুন্ডাগিরি আর চলবে না। যেখানেই যাই, সেখানেই একই কথা শুনতে পাই। কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা এ রাজ্যে ঠিকঠাক দেওয়া হচ্ছে না। ‘

একদিকে যেমন রাজ্যে শাসকদলের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন, অন্যদিকে তেমনই কটাক্ষ করেছেন কংগ্রেসকেও৷ তিনি বলেন, ‘ভারত যেদিন কংগ্রেস মু্ক্ত হবে, সেদিনই ভারত গরিব মুক্ত হবে।’‌ ‘‌গরিবি হটাও’‌ নিয়ে কংগ্রেসের স্লোগানের বিরুদ্ধে তাঁর তোপ,‘‌গরীবদের হাতিয়ার করে কংগ্রেস রাজত্ব করে গিয়েছে এতদিন। ইন্দিরা গান্ধী থেকে রাজীব গান্ধী, সোনিয়া গান্ধী আর এখন রাহুল গান্ধী গরিবি মুক্ত করার কথা বলে গেছে। গরিবি কিছুই সরে নি।