মুম্বই : বিতর্কে ভরে উঠেছিল দেশ৷ একজন সন্ত্রাসবাদীকে কেন ভালো মানুষ হিসেবে দেখানো হবে? দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে ও৷ এমনই অসংখ্য প্রশ্নের মুখে পড়েছিল রাজকুমার হিরানির ছবি ‘সঞ্জু’৷ এমনকি ছবির শেষে মিডিয়াকে ঠেস দিয়ে একটি গানও ছিল৷ যেখানে একসঙ্গে দেখা গিয়েছিল রিয়েল সঞ্জু এবং সিনে সঞ্জু রণবীর কাপুরকে৷ সঞ্জয় দত্তের যত না দোষ তার থেকেও বেশি দোষী হিসেবে দেখিয়েছে মিডিয়া৷ এই দাবি করেছিলেন ছবির নির্মাতা৷

সম্প্রতি উল্টো সুরে কথা বলছেন ছবির পরিচালক রাজকুমার হিরানি৷ “শ্যুটিংয়ের সময় আমার বারবার মনে হয়েছিল যে যা করছি ভুল করছি৷ ছবির প্রথম এডিটের পর আমরা কিছু সংখ্যক মানুষকে ছবিটি দেখিয়েছিলাম৷ প্রত্যেকে আরও বেশি করে সঞ্জয় দত্তকে ঘৃণা শুরু করল৷ ওরা বলেছিল এই মানুষটাকে ওরা দেখতেই চায় না৷ পছন্দই করে না একে৷ আমি যেহেতু সত্য ঘটনাকে রূপোলি পর্দায় তুলে ধরতে চেয়েছিলাম তাই সঞ্জয় দত্তের প্রতি কোনও সমবেদনা না দেখিয়ে সব সত্যতা দর্শককে দেখাতে চেয়েছিলাম৷ কিন্তু পরে ভেবে দেখলাম যে উনি আমাদের হিরো এইভাবে তাঁকে দেখানো যেতে পারে না৷”

পড়ুন: মাঝরাতে মাসাজের অফার দেওয়া হয়েছিল: বিস্ফোরক রাধিকা

পরিচালকের কথায় তিনি আজও ছবিতে বহু খুঁত খুঁজে পান৷ কারণ যে ছবির অধিকাংশই আসল স্ক্রিপ্ট অনুযায়ী হয়নি৷ তিনি রিয়েল সঞ্জয় দত্তকে দেখাতে চাইলেও সমবেদনার দিক থেকে সঞ্জয় দত্তের বহু দোষ ঢেকে দিয়েছেন ছবির ফাইনাল এডিটে৷ ছবিটি রিলিজ করার পর বহু নেটিজেন, দর্শকরা দাবি করেছিলেন যে এটা সঞ্জয় দত্তের আসল কাহিনি নয়৷ ছবিতে তাঁকে নির্দোষ দেখানো হয়েছে৷ কিন্তু কেন? একটা মানুষ কিছুই করল না তাও তাঁকে জেলে রাখা হল এতদিন৷

সেই সময় রাজকুমার হিরানি এবং রণবীর কাপুর প্রত্যেক অভিযোগের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছিলেন৷ বলেছিলেন, মানুষমাত্রই ভুল হয়, তাই বলে তাঁকে সারাজীবন অপরাধী হিসেবে দেখা ঠিক নয়৷ ছবিটি একশো কোটির ব্যবসা করলেও দর্শকদের মনে বলিউডের প্রতি একটা সন্দেহ তৈরি করে দিয়েছিল৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনরা লিখেছিল, “বলিউড নিজেকে ফের শিরদাঁড়াহীন প্রমাণ করল৷ একজন ক্রিমিনালকে ভালো মানুষ হিসেবে দেখিয়ে৷”