কলকাতা: সোমবার সুপ্রিম কোর্টে রাজীব কুমারের জামিন মামলার শুনানি৷ কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের জামিন বাতিলের জন্য সিবিআইয়ের তরফে দায়ের করা হয়েছে এই মামলা। যেখানে কলকাতা হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে রাজীবের জামিন বাতিল করার জন্য শীর্ষ আদালতের হস্তক্ষেপ চাওয়া হয়েছে৷

কলকাতা হাইকোর্ট থেকে জামিন পাওয়ার পর থেকেই লোকচক্ষুর আড়ালেই আছেন একদা দুঁদে পুলিশ অফিসার অধুনা সারদা কাণ্ডে অভিযুক্ত কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার। এর মাঝেই শীর্ষ আদালতের শুনানিতে কী হয় সেইদিকে চেয়ে আছে গোটা দেশ। সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রির তালিকা অনুযায়ী তৈরি কজ লিস্ট অনুযায়ী সদ্য নিযুক্ত প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে ৩৩ নম্বরে হবে এই মামলার শুনানি৷ প্রধান বিচারপতির বোবদের সঙ্গে এই শুনানিতে থাকবেন বিচারপতি বি আর গভাই৷ এই মুহূর্তে সিআইডির এডিজি পদে কর্মরত রাজ্যের অন্যতম অভিজ্ঞ গোয়েন্দা।

গত ১ অক্টোবর সিবিআইয়ের আবেদন খারিজ করে রাজীব কুমারের আগাম জামিন মঞ্জুর করেছিল কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ৷ সিবিআইয়ের তরফে রাজীব কুমারকে হেফাজতে নিয়ে জেরা করার আর্জি জানানো হয়েছিল৷ বিচারপতি শহিদুল্লাহ মুন্সি ও বিচারপতি শুভাশিস দাশগুপ্তের ডিভিশন বেঞ্চ তাদের রায়ে জানিয়েছিল, সারদা চিট ফান্ড মামলায় তদন্তের স্বার্থে রাজীব কুমার যথাযথ সহযোগিতা করেছিলেন। তাই এই ক্ষেত্রে তাঁর বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার তরফে তোলা অসহযোগিতার অভিযোগ গ্রাহ্য হয় না৷ এরপরেই কলকাতা হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে শীর্ষ আদালতে মামলা দায়ের করে রাজীব কুমারের জামিন বাতিলের আর্জি জানায় সিবিআই৷ পুজোর ছুটি শুরু হওয়ার ঠিক আগের দিন শীর্ষ আদালতে দায়ের হয় এই মামলা, এই মামলারই আজ শুনানি হবে শীর্ষ আদালতে৷

উল্লেখ্য,এর আগেও রাজীব কুমার সারদা ভুয়ো অর্থলগ্নি সংস্থার কেলেঙ্কারির তদন্তে সহযোগিতা করেননি বলে একাধিকবার সিবিআইয়ের তরফে অভিযোগ করা হয়েছে৷ রাজীব কুমার নিজে বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট-এর প্রধান থাকাকালীন গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষ্য প্রমাণ নষ্ট করেছিলেন বলেও অভিযোগ করেছিল সিবিআই৷ রাজীব অবশ্য প্রতিবারই এই অভিযোগগুলি অস্বীকার করেছেন৷ সিবিআইয়ের তরফে করা তদন্তে তিনি কী ভাবে সহযোগিতা করেছিলেন, সেই প্রমাণও বিভিন্ন আদালতে তুলে ধরেছিলেন রাজীব৷ আজ, শুনানিতে কী হয় সবার নজর সেই দিকেই।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।