বেঙ্গালুরু: রাজনৈতিক জীবনে পা রাখার কথা ছিল শীঘ্রই। কিন্তু আচমকা সেই সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হঠলেন তিনি। জানালেন ভগবান তাঁকে বার্তা দিয়েছে। তাই এই সিদ্ধান্ত বদল তাঁর।

সম্প্রতি সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন রজনীকান্ত। আর তারপরই এই সিদ্ধান্ত। শ্যুটিং এখনও শুরু করেননি তিনি। রাজনৈতিক পরিকল্পনা নিয়ে বড় ঘোষণা করেন রজনীকান্ত জানিয়ে দিলেন যে তিনি কোনও রাজনৈতিক দল তৈরি করবেন না।

২০২১ তামিলনাড়ু নির্বাচনকে মাথায় রেখেই নতুন রাজনৈতিক দল নিয়ে আসছেন বলে ডিসেম্বরের শুরুতে ট্যুইট করেছিলেন রজনীকান্ত৷ কিন্তু আপাতত রাজনীতি থেকে নিজেকে দূরেই রাখছেন দক্ষিণ ভারতের ভূমিপুত্র৷

রজনীকান্ত মঙ্গলবার ট্যুইট করেই এই সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন৷ তিনি বলছেন, তাঁর রাজনীতিতে আসা হয়তো ঠিক হবে না৷ সাম্প্রতিক শারীরিক অসুস্থতাকে রজনীকান্ত ভগবানের থেকে পাওয়া সতর্কবার্তা হিসেবে মনে করছেন৷

রজনীকান্ত লিখেছেন, “ভগবান আমাকে সাবধানবাণী দিলেন একটা৷ আমি দল করার পর যদি মিডিয়া এবং সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচার করি, তাহলে আমি জনগণের মধ্যে রাজনৈতিক আলোড়ন ফেলে নির্বাচনে বড় ব্যবধানে জিততে পারব না। রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কেউই এই বাস্তবটা অস্বীকার করতে পারবে না। “

২০১৭ সাল থেকেই রজনীকান্তের সক্রিয় রাজনীতিতে আসার ইচ্ছা৷ কিন্তু এবারও সেটা ধাক্কা খেল৷ তিনি জানিয়েছেন, যাঁরা তাঁকে বিশ্বাস করেছেন, তাঁদের তিনি বলির পাঁঠা বানাতে পারবেন না৷ কোনও কাজই অর্ধেক ভাবে তিনি করতে পারবেন না৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।