ফাইল ছবি।

কলকাতাঃ  বেসুরো একের পর এক তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন অনেকেই। তবে সেই তালিকায় প্রথমেই রয়েছেন হাওড়ার একাধিক বিধায়ক-মন্ত্রী। মন্ত্রিত্ব ছেড়েছেন লক্ষ্মী-রাজীবের মতো নেতৃত্ব। মুখ খুলে দলের চক্ষুশূল বৈশালী ডালমিয়া।

বিধানসভা ভোটের আগে একের পর এক তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বে বিদ্রোহে চরম অস্বস্তিতে শাসকদল। এই অবস্থায় ‘বিদ্রোহী’ রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টা তৃণমূলের। জানা যাচ্ছে, রাজীবকে ফোন করেছেন তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতার।

জানা গিয়েছে, ফোনে তৃণমূলের ওই শীর্ষ নেতা রাজীবকে জানিয়েছেন, আপাতত দল না ছাড়তে। কার্যত অনুরোধ-ই করেছেন বলে খবর। একই সঙ্গে তিনি নাকি জানিয়েছেন, পরিস্থিতি ঠিক হয়ে যাবে। আর তিন মাস রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে অপেক্ষা করার অনুরোধ করা হয়েছে বলে সূত্রের খবর। যদিও এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য এখনও পর্যন্ত করেননি রাজ্যের প্রাক্তন বনমন্ত্রী।

তবে আজ মঙ্গলবার ইঙ্গিতপূর্ণ একটি মন্তব্য করেছেন তিনি। আজ মঙ্গলবার প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে ডোমজুড়ে একটি অনুষ্ঠানে যোদ দেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই তিনি বলেন, ‘প্রজাতন্ত্র দিবসে বলছি, ভোটে লড়লে ডোমজুড় থেকেই দাঁড়াব।

কারণ এখানকার মানুষের সঙ্গে আমার আত্মীক সম্পর্ক।’ কিন্তু প্রশ্নটা হল, কোন দলের হয়ে দাঁড়াবেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়? তৃণমূলের না বিজেপির? সদ্য মন্ত্রিত্ব ছেড়েছেন রাজীব। তবে তিনি এখনও সরকারিভাবে তৃণমূলেই রয়েছেন। গত ২১ জানুয়ারি রাজ্য মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেন রাজীব৷

এর পরেই শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় রাজীবকে ডোমজুড় থেকে ভোটে লড়ার চ্যালেঞ্জ ছুড়েছিলেন৷ ডোমজুড় বিধানসভা কেন্দ্রটি শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যেই পড়ে৷

এ দিন ডোমজুড়ে প্রজাতন্ত্র দিবসের একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে রাজীব বলেন, ‘ডোমজুড়ের মানুষের সঙ্গে আমার আত্মার সম্পর্ক৷ আগামী দিনে ডোমজুড়ের মানুষ বুঝিয়ে দেবে কে তাঁদের পরিবারের সদস্য আর কে বাইরের লোক৷’

আত্মবিশ্বাসী রাজীব আরও বলেন, ‘আমার মানুষের সঙ্গে যা সম্পর্ক আছে, তাতে আমি ডোমজুড়ের বাইরে বাংলার কোথাও দাঁড়াব না৷ আমি ডোমজুড়েই দাঁড়াব৷’ তাঁর এহেন মন্তব্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিকমহল।

উল্লেখ্য, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এখনও বিধায়ক পদ বা তৃণমূলের সদস্য পদ না ছাড়লেও তা সময়ের অপেক্ষা বলেই মনে করা হচ্ছে৷ এমনকী, এ মাসের শেষে অমিত শাহের বঙ্গ সফরের সময়ই তিনি হাওড়ায় বিজেপি-র মহা যোগদান মেলায় গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাতে পারেন বলে খবর ।

যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে সরকারিভাবে কোনও মন্তব্য করেননি তৃণমূলের এই বিধায়ক।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।