স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কলকাতার এবং বিধাননগরের প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার আলিপুর আদালতে আগাম জামিনের আবেদন জানিয়েছেন৷ রাজীব কুমারের আইনজীবীরা আদালতে এই আবেদন জানানোর পাশাপাশি কলকাতায় সিবিআইয়ের দফতর – বিধাননগরের সিজিও কমপ্লেক্সেও এই বিষয়ে নোটিশ দিয়েছে৷ শনিবার এই মামলার শুনানি হবে৷

আলিপুর জেলা বিচারকের এজলাসে মামলা দায়ের হয়েছে৷ কিছুদিন আগেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে, সিবিআই চাইলেই যেকোনও মুহূর্তে রাজীব কুমারকে গ্রেফতার হতে পারে৷ আইনজীবী মহলে যখন জোর আলোচনা শুরু হয়েছে, এই পরিস্থিতিতে রাজীবের স্ট্র্যাটেজি কী হবে৷ অনেকে এও বলছেন, রাজীব আর ‘নিরুদ্দেশ’ থাকবেন না৷ এবার সিবিআইয়ের মুখোমুখি হবেন৷

কলকাতা হাইকোর্ট রক্ষাকবজ তুলে নেওয়ার পর থেকেই বেপাত্তা এই পুলিশকর্তা৷ পার্ক স্ট্রিটে রাজীবের বাসভবনে গিয়ে তল্লাসি চালাতে থাকেন সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা৷ বাদ দেওয়া হয়নি রান্নাঘরও৷ বাসভবনে নোটিশ ঝুলিয়ে আসে সিবিআই৷ সেই নোটিশে বলা হয়, অবিলম্বে সিবিআইয়ের সঙ্গে দেখা করতে হবে৷ রাজীবকে ঘরতে কলকাতায় দিল্লি থেকে বিশেষ দলও এসে পৌঁছে গিয়েছে৷

রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে সিবিআইয়ের মূল অভিযোগ যে তিনি বিধাননগরের কমিশনার থাকাকালীন সারদা মামলার তথ্যপ্রমাণ লোপাট করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীকে বাঁচিয়েছিলেন৷ তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু নেতাও এই তালিকায় রয়েছে৷ সিবিআই রাজীবকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে৷ তার আগে রাজীব কুমারের বাড়ি তল্লাশি চালাতে গিয়ে সিবিআই কর্তাদের কলকাতা পুলিশের চরম প্রতিরোধের মুখে পড়তে হয়৷

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজীব কুমারকে বাঁচাতে ধর্মতলায় ধর্ণায় বসেন৷ তিনি জানান, এটি মোদী সরকারের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর প্রতি আক্রমণ৷ সুপ্রিম কোর্ট রাজীব কুমারকে ইতিমধ্যেই বলেছে, তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে চরম ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ এরপর সিবিআইয়ের অফিসাররা শিলংয়ে রাজীব কুমারকে জেরাও করে৷ সুপ্রিম কোর্ট, কলকাতা হাইকোর্ট, বারাসত আদালত রাজীব কুমারকে আগাম জামিন দিতে রাজি হয়নি৷