নয়াদিল্লি: দুর্নীতির সঙ্গে আপোস করতে না-পেরে দিল্লি ও ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট সংস্থা (ডিডিসিএ) প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগ করলেন রজত শর্মা। দিল্লি ক্রিকেটকে দুর্নীতিমুক্ত করার শপথ নিয়ে বছর দেড়েক আগে ডিসিসিএ প্রেসিডেন্টের চেয়ারে বসেছিলেন প্রবীণ এই সাংবাদিক৷ কিন্তু কায়েমী স্বার্থ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে হার স্বীকার করে শনিবার সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন রজত শর্মা৷

পদত্যাগের পর বিবৃতি দিয়ে রজত শর্মা জানান, ‘এখানে কাজ করা সহজ নয়। তবে বিশ্বাসের জন্য আমি শক্তি পেয়েছিলাম৷ কিন্তু ক্রিকেটের চেয়েও কায়েমী স্বার্থ এখানে অনেক বেশি সক্রিয়। আমার নীতিবোধ, সততা ও স্বচ্ছতা নিয়ে এখানে কাজ করা সম্ভব নয়। আমি কোনও মূল্যেই দূর্নীতির সঙ্গে আপোস করতে পারব না। তাই আজ ডিডিসিএ প্রেসিডেন্ট পদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিলাম৷ অ্যাপেক্স কাউন্সিলের কাছে আমি পদত্যাগ পত্র পাঠিয়ে দিয়েছি৷ তবে আমাকে ভালোভাসা ও সমর্থন করার জন্য ধন্যবাদ৷’

প্রয়াত অর্থমন্ত্রী তথা ডিডিসিএ-র প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট অরুণ জেটলির সমর্থনে ক্রিকেট প্রশাসনে এসেছিলেন এই প্রবীণ সাংবাদিক। কিন্তু জেটলির প্রয়াণের পরে দিল্লি ক্রিকেট সংস্থায় কোণঠাসা হয়ে পড়েন তিনি। কারণ জেটলি সব গোষ্ঠীকে একসঙ্গে নিয়ে চলতে পারলেও তিনি পারেননি। বিবৃতিতে তিনিও আরও বলেন, ‘ন্যায়সঙ্গতভাবে কাজ করতে গিয়ে প্রচুর বাধা পেয়েছি, সমস্যার মুখোমুখি হয়েছি।’

ডিডিসিএ সচিব বিনোদ তিহারার সঙ্গে এমনিতেও মতপার্থক্য ছিল তাঁর। বিনোদের দিকে আবার সংস্থার অধিকাংশ সদস্যের সমর্থন ছিল। ফলে কাজ করতে গিয়ে সমস্যা বেড়েছিল তাঁর। তাই সরে দাঁড়ানো ছাড়া উপায় ছিল না বলেও জানিয়েছেন রজতবাবু৷ গত বছর জুলাইয়ে নির্বাচনে ৫৪.৪০ শতাংশ ভোট পেয়ে ডিডিসিএ প্রেসিডেন্টের চেয়ারে বসেছিলেন তিনি৷