জয়পুর: সম্ভাবনা ছিল, শেষ পর্যন্ত সেই পথেই হাঁটল রাজস্থান রয়্যালস৷ প্রাক্তন অজি অধিনায়ক স্টিভ স্মিথকে রিলিজ করে দিল রাজস্থান ফ্রঞ্চাইজি৷ ২০২১ আইপিএলের জন্য প্লেয়ার রিটেনশিপের শেষ দিন বুধবার৷ এদিনই স্মিথকে রিলিজ করে দিল রয়্যালস৷ পাশাপাশি পরবর্তী ক্যাপ্টেনের নাম ঘোষণা করে দিল প্রথম আইপিএল চ্যাম্পিয়নরা৷

সিডনি টেস্টে জুতোর স্পাইক দিয়ে ঋষভ পন্তের ব্যাটিং গার্ড মুছে দিয়ে সমালোচিত হয়েছিলেন স্মিথ৷ তারপরই অজি তারকা ক্রিকেটারকে রিলিজ করার কথা সামনে এসেছিল৷ রাজস্থান ফ্র্যাঞ্চাইজি সুত্রে এমনটাই জানা গিয়েছিল৷ বাইশ গজে অজি ক্রিকেটারদের স্লেজিং বিশ্ববন্দিত৷ কিন্তু তা বলে ব্যাটসম্যানকে আউট করার জন্য নক্কারজনক স্ট্র্যাটেজি নিতে হবে৷ সিডনিতে পন্তকে আউট করতে স্মিথ যা করলেন, তা কুৎসিত বললেও কম বলা হবে৷ ভিডিও-তে পরিষ্কার দেখা গিয়েছিল, জুতোর স্পাইক দিয়ে পন্তের ব্যাটিং গার্ড মুছে দিচ্ছেন স্মিথ৷

বুধবারই স্মিথকে ছেঁটে ফেলল রয়্যালস টিম ম্যানেজমেন্ট৷ একই সঙ্গে নতুন অধিনায়ক হিসেবে সঞ্জু স্যামসনের নাম ঘোষণা করল রাজস্থান৷ রয়্যালস ফ্র্যাঞ্চাইজির তরফে এদিন জানানো হয়েছে, আইপিএলের পরবর্তী সংস্করণের জন্য ১৭ জন প্লেয়ার ধরে রেখেছে৷ আর ৮ জন ক্রিকেটারকে রিলিজ করে দিয়েছে৷ ২০২১ আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসকে নেতৃত্ব দেবে সঞ্জু স্যামসন৷’

দু’ বছর রাইজিং পুনে সুপারজায়েন্টে খেলার পর রাজস্থান রয়্যালসে যোগ দিয়েছিলেন স্মিথ৷ কিন্তু শেষ দু’ বছর অজি তারকা ব্যাটসম্যানের পারফর্ম্যান্স ভালো নয়৷ গত আইপিএলে স্মিথের নেতৃত্বে অষ্টম স্থানে শেষ করে রাজস্থান রয়্যালস৷ স্মিথকে ছেড়ে দিলেও তিন ইংল্যান্ড ক্রিকেটার বেন স্টোকস, জোস বাটলার ও জোফরা আর্চারকে ধরে রেখেছে৷ এছাড়াও ডেভিড মিলার ও অ্যান্ড্রু টাইকেও ধরে রেখেছে রাজস্থান রয়্যালস৷

রাজস্থান রয়্যালসের প্রধান মালিক মনোজ বাদালে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘২০২১ আইপিএলের জন্য কোর প্লেয়ারদের ধরে রাখতে পেরে আমরা খুশি৷ আমাদের প্রতিশ্রুতিবান প্লেয়ারের গ্রুপ রয়েছে৷ আশা করি এবার আমরা ব্যলান্সড দল গড়তে পারব৷’ শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন অধিনায়ক কুমার সঙ্গকারাকে ডিরেক্টর অফ ক্রিকেট অপারেশন হিসেবে নিযোগ করেছে রাজস্থান রয়্যালস৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.